বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৮, ২০১৮

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

জঙ্গিবাদে মদদদাতারা বিচারের মুখোমুখি হবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, অর্থসহায়তা ও নির্দেশ দিয়ে যারা দেশে জঙ্গিবাদে মদদ জোগাচ্ছে এবং যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষা করছে, তাদের অবশ্যই বিচারের মুখোমুখি হতে হবে। একই সঙ্গে পেট্রলবোমা মেরে যারা নিরীহ জনগণকে পুড়িয়ে মারছে, তাদেরও বিচার করা হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় গতকাল বুধবার রিজ কার্লটন হোটেলে আওয়ামী লীগের ওয়াশিংটন শাখার নেতা-কর্মীদের এক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। খবর বাসসের।

বিএনপি-জামায়াত নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, এসব রাজনৈতিক মামলা নয়, এসব জনগণকে পুড়িয়ে মারার মামলা। তিনি বলেন, যারা অপরাধী, তাদের অবশ্যই শাস্তি পেতে হবে। এ ছাড়া যারা অপরাধীদের সহায়তা করেছে, যুদ্ধাপরাধীদের মন্ত্রী বানিয়েছে, তাদেরও বিচারের আওতায় আনা হবে।

এ সময় শত শত দলীয় সমর্থক বিচারের সমর্থনে স্লোগান দিতে থাকেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ (গতকাল) ৭০ বছরে পা রেখেছেন। কিন্তু জাঁকজমকপূর্ণ কোনো আয়োজন না করেই তাঁর জন্মদিন পালন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অন্যের কল্যাণে স্বার্থত্যাগের বিষয়টি বাল্যকালেই তিনি তাঁর মরহুম মা-বাবার কাছ থেকে শিখেছিলেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের জনগণ যখন ওই সময় খাদ্য ও আশ্রয়ের জন্য সংগ্রাম চালাচ্ছিল, তখন তাঁর পরিবারের সদস্যরা কখনই জাঁকজমকভাবে জন্মদিন পালন করেননি।

জন্মদিন উদ্‌যাপনের জন্য কেক কাটা পছন্দ নয় উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘দেশের নির্যাতিত ও নিপীড়িত জনগণের মুখে হাসি ফোটাতে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ সম্পূর্ণ করাই আমার একমাত্র লক্ষ্য।’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করা, পাকিস্তানি শাসকদের রুজু করা মামলা মোকাবিলা এবং স্বাধীনতার আন্দোলনকে চালিয়ে নেওয়ার জন্য তাঁর মায়ের যে অবদান, তা স্মরণ করেন।

অবৈধভাবে জেনারেল জিয়ার ক্ষমতা দখল ও বিএনপি গঠন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, জিয়া সেনা আইন ও সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন। যে দল অবৈধভাবে গঠিত হয়েছে, সেই দল জনগণের কল্যাণ করতে পারে না। তিনি অভিযোগ করে বলেন, জিয়ার পুত্র (তারেক) অর্থ পাচারকারী, যা এফবিআইয়ের তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে। তিনি আরও বলেন, ‘আমরা কখনো অসৎ পথে যাইনি। আমরা আমাদের নিজেদের ভাগ্য গড়ার চিন্তা করছি না। আমাদের চিন্তা কীভাবে জনগণের কল্যাণ হবে।’

প্রধানমন্ত্রী সহিংস চরমপন্থার বিরুদ্ধে প্রবাসীদের সজাগ থাকার পরামর্শ দেন। বলেন, এর কারণে যুক্তরাষ্ট্রে অনেক বাংলাদেশিকে জীবন দিতে হয়েছে। এখানে প্রবাসী বাংলাদেশিদের হত্যা গ্রহণযোগ্য নয়…সব জায়গায়ই সন্ত্রাসবাদ। এ জন্য আরও সজাগ থাকতে হবে।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

কার্যকর হলো ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন

বহুল আলোচিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে স্বাক্ষর করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুলবিস্তারিত পড়ুন

কোটাধারীদের শাহবাগ আন্দোলন স্থগিত

সরকারী চাকুরীতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা ৩০% বহাল এবং একই স্থানে প্রতিবন্ধীদেরবিস্তারিত পড়ুন

ইয়াবা বিপণন-সেবনের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড

সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে নতুন ‘মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮’ এরবিস্তারিত পড়ুন

  • ‘গ্রেনেড হামলার রায় নিয়ে নৈরাজ্য সহ্য করা হবে না’
  • অবশেষে মালয়েশিয়া যাচ্ছে ৭০ হাজার শ্রমিক
  • পদার্থে নোবেল পেলেন ৩ বিজ্ঞানী
  • সিনহার বিরুদ্ধে পাবনায় সাধারণ ডায়েরি
  • তফসিল ও নির্বাচনকালীন সরকার নভেম্বরে
  • ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধন না হলে কঠোর আন্দোলন
  • আবাসিক এলাকায় পলিথিন কারখানা : বিপন্ন পরিবেশ
  • ১৭১ যাত্রীকে বাঁচালেন যে পাইলট
  • চট্টগ্রামে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ডাকাতি মামলার আসামি নিহত
  • ১০ জেলায় নতুন ডিসি
  • ইউএনওর ব্যতিক্রমী উদ্যোগ ‘মহানুভবতার দেয়াল’
  • রোহিঙ্গা ইস্যু: আন্তর্জাতিক পুরস্কার পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী