শনিবার, ডিসেম্বর ১৬, ২০১৭

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

‘জবরদস্তি’ এবারও এসএসসির ফরম পূরণে বাড়তি টাকা আদায়

বোর্ড নির্ধারিত ফি সর্বোচ্চ এক হাজার সাতশ টাকা নেয়ার কথা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এসএসসির ফরম পূরণে। কিন্তু মিরপুরে সরকারি বাঙলা স্কুলে আদায় করা হচ্ছে আট হাজার টাকারও বেশি।

অতিরিক্ত টাকা আদায় করতে গিয়ে মার্চ মাস পর্যন্ত আগাম বেতন ধরা হয়েছে তিন হাজার টাকা। আবার মার্চ মাস পর্যন্ত অতিরিক্ত ক্লাস ও মডেল টেস্টের নামেও আদায় করা হচ্ছে আরও তিন হাজার টাকা। এর বাইরে ফেয়ারওয়েলের (বিদায় সংবর্ধনা) নামে আদায় করা হচ্ছে পাঁচশ টাকা, আর কেন্দ্র ব্যবহারিকের নামে নেয়া হচ্ছে তিনশ টাকা।

একাধিক অভিভাবক বলেন, তারা ডিসেম্বর পর্যন্ত বেতনসহ সব কিছু পরিশোধ করেছে। ফেব্রুয়ারির শুরুতে এসএসসি পরীক্ষা হবে। জানুয়ারি থেকে ক্লাস, কোচিং ও স্কুলের মডেল টেস্ট বন্ধ থাকবে। অথচ তাদের কাছ থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত বেতন আদায় করা হয়েছে। এছাড়া আদায় করা হয়েছে অতিরিক্ত ক্লাস ও মডেল টেস্টের টাকাও। এর প্রতিবাদও করা যায়নি। স্কুলের পরিচালনা পর্ষদের একজন এবং প্রতিষ্ঠান প্রধান মিলে বাড়তি ফি আদায়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

এ বিষয়ে বক্তব্য নেয়ার জন্য প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ আব্দুস ছালামের মোবাইল নম্বরে একাধিকবার ফোন দেয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

আগারগাঁও তালতলা সরকারি কলোনি উচ্চ বিদ্যালয় ও মহিলা কলেজেও বিজ্ঞান বিভাগে ৭ হাজার ৩০ এবং মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৬ হাজার টাকার বেশি আদায় করা হয়েছে।

রাজধানী ও বিভাগীয় শহরের মতো না হলেও মফস্বলের স্কুলগুলোতেও বাড়তি ফি আদায় করা হচ্ছে। পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার কালাইয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে এসএসসির ফরম পূরণের জন্য ৩৫০০ টাকা নেয়া হচ্ছে। বাড়তি টাকা না দিলে ফরম পূরণ করতে দেয়া হচ্ছে না। আর কেউ অতিরিক্ত ক্লাস বা কোচিং না করতে চাইলেও তাকে দিতে হচ্ছে টাকা।

এটা কেবল চলতি বছরের সমস্যা না। প্রতি বছর শিক্ষাবোর্ড বিজ্ঞপ্তি দিয়ে মানবিক, বিজ্ঞান ও বাণিজ্য বিভাগে ফরম পূরণের জন্য আলাদা ফি নির্ধারণ করে দেয়। ব্যবহারিক পরীক্ষা থাকে বলে বিজ্ঞানে এই ফি থাকে বেশি। কিন্তু স্কুলে আদায় করা হয় এর দ্বিগুণ, তিনগুণ, চারগুণ বা তার চেয়ে বেশি।

এসব নিয়ে গণমাধ্যম সংবাদ প্রচার করে ভুরি ভুরি। শিক্ষাবোর্ড বা শিক্ষা মন্ত্রণালয় বরাবর কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দেয়। কিন্তু এর কোনো প্রতিফলন দেখা যায় না। দুই একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হলেও বাকি থেকে সিংহভাগ।

এবারও বাড়তি ফি আদায় নিয়ে যোগাযোগ করা হলে ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান সেই কথাই বলেছেন, যা এর আগে তার পূর্বসূরীরা বহুবার বলে গেছেন।

বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘এসএসসির ফরম পূরণের বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করেছি। কিন্তু কেউ যদি অতিরিক্ত টাকা আদায় করে, তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামান নিখোঁজ

ভিয়েতনামে নিযুক্ত বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামান নিখোঁজ হওয়ার অভিযোগবিস্তারিত পড়ুন

যত বিয়ে, বিচ্ছেদ তার এক চতুর্থাংশ ময়মনসিংহে

২০১৬ সালের ১১ মার্চ ময়মসনিংহের গফরগাঁওয়ের চৌকা গ্রামের এক তরুণীরবিস্তারিত পড়ুন

দ্বিতীয় দিনের মতো জিজ্ঞাসাবাদে বেসিকের বাচ্চু

বেসিক ব্যাংকের প্রাক্তন চেয়ারম্যান আবদুল হাই বাচ্চুকে দ্বিতীয় দিনের মতোবিস্তারিত পড়ুন

  • অস্ত্রসহ সন্দেহভাজন জঙ্গি আটক
  • সন্তানকে মাঝে রেখে বাবা-মা ঘুমিয়ে পড়েন, চুরির অভিযোগ ঢাকা মেডিকেল থেকে
  • ২০ মাস পূর্ণ হয়েছে ২০ নভেম্বর, তনুর পরিবারকে ঢাকায় ডেকেছে সিআইডি
  • মুরগিকে অপহরণ করে ধর্ষণ করল কিশোর!
  • জুয়ায় বাধা : নাসিম হত্যার প্রধান আসামি গ্রেফতার
  • প্রসব ফুটপাতে, মাস পার হলেও সাজা হয়নি কারও
  • গোদাগাড়ী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জেলে
  • মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টের চিঠির বৈধতা নিয়ে রায়
  • কল্যাণপুরে জঙ্গি আস্তানা : প্রতিবেদন দাখিল ২৪ ডিসেম্বর
  • উৎপলের পর সিজারকে নিয়েও অন্ধকারে পুলিশ
  • সেপ ব্ল্যাটারের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ
  • Enjoy this blog? Please spread the word :)