বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০১৭

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

দিনে পাঁচ-ছ’বার বালি খেয়েও সুস্থ আছেন

bali-1-324x215

দিনে পাঁচ-ছ’বার দু’মুঠো করে বালি খান তিনি। বিগত ৬৩ বছর ধরে নিয়মিত বালি খেয়ে আসছেন বারাণসী ভারতের নিবাসী কুসমাবতী। এই বিচিত্র অভ্যাসের কারণে তার শরীর অসুস্থ হওয়ার কথা থাকলেও উল্টো নীরোগ আছেন তিনি।সমবয়সী অন্য যে কোনো বৃদ্ধ বা বৃদ্ধার তুলনায় অনেক শক্তপোক্ত দেহ কুসমাবতীর। শরীরে এখনও থাবা বসাতে পারেনি জরা কিংবা অন্য কোনো বার্ধক্যজনিত রোগ। এখনও কৃষি কাজ করেন সকাল-সন্ধ্যা।

কিন্তু কুসমাবতী নামের এই মহিলার এমন সুস্বাস্থ্যের রহস্যটা কী? তার নিজের দাবি, প্রতিদিন নিয়মিত বালি খাওয়ার অভ্যাসই তার এই বার্ধক্যরূপী তারুণ্যের মূলে।

শুনতে যতই অদ্ভুত লাগুক, বারাণসী নিবাসী কুসমাবতী বিগত ৬৩ বছর ধরে নিয়মিত বালি খেয়ে আসছেন। দিনে পাঁচ-ছ’বার দু’মুঠো করে বালি খান তিনি।

কিন্তু কেন এমন অদ্ভুত অভ্যাস? কুসমাবতী দেবী জানালেন, তাঁর বয়স যখন বছর পনের, তখন এক বার দুরারোগ্য পেটের অসুখে শয্যাশায়ী হয়ে পড়েন তিনি। কোনো এক আত্মীয় পরামর্শ দেন, বালি খেলেই রোগমুক্তি ঘটবে। পরামর্শ শিরোধার্য করে বালি খেতে শুরু করেন কুসমাবতী। কয়েক দিনের মধ্যেই সেরে যায় রোগ। সেই শুরু। তারপর ৬৩ বছর কেটে গিয়েছে, কিন্তু বালি খাওয়ার অভ্যাস কুসমাবতী ছাড়েননি।

তার ধারণা, বালির মধ্যে এমন‌ কোনো গুণ রয়েছে, যা তাকে সুস্থ থাকতে সাহায্য করে। কারণ, তার দাবি, নিয়মিত বালি খাওয়ার ফলেই এই বয়সেও একেবারে সুস্থ রয়েছে তার দেহ।

কিন্তু বালি খেতে ঘেন্না করে না? কুসমাবতী জানান, ‘তা কেন! বরং বালি খেতে বেশ ভালোই। অনেকটা নুন-চিনির মিশ্রণ যেমন হয়, তেমনই নোনতা-মিষ্টি স্বাদ হয় বালির।’

কুসমাবতীর বাড়ির লোকেরা আপত্তি করেন না? বৃদ্ধার ছেলে রমেশ বললেন, ‘আপত্তি করব কেন? ছোটবেলা থেকেই তো মা-কে বালি খেতে দেখছি। আর কোনোদিন তো এর জন্য মায়ের শরীর খারাপ হয়েছে বলে দেখিনি। আর মা যে শুধু বালিই খান, তা তো নয়। অন্যান্য খাবারদাবারের পাশাপাশি কয়েক মুঠো বালিও খেয়ে নেন, অনেকটা ওষুধের মতোই। মায়ের বিশ্বাস, বালি খেলে শরীর ভালো থাকে। সেই বিশ্বাস যদি সত্যি হয়, তা হলে বালি খাওয়ায় বাধাই বা দেব কেন আমরা!’

তা রমেশ নিজেও মায়ের দেখাদেখি বালি খাওয়া শুরু করেন না কেন? রমেশ হেসে বলেন, ‘আরে না না। ও সব আমাদের কম্ম নয়। মা খেতে পারেন, কারণ মায়ের নিশ্চয়ই কোনো আলাদা ক্ষমতা রয়েছে। আমরা বালি খেলে অসুস্থ হয়ে পড়ব।’

রমেশ যা-ই বলুন, কুসমাবতীর ধারণা, নিয়মিত বালি খেলে শরীরের উপকার বৈ অপকার হয় না। এই ৭৮ বছর বয়সেও তাই মু‌ঠো মুঠো বালি গলাধঃকরণ করে চলেছেন তিনি।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

im

নিজেকে নিজেই বিয়ে করে সোস্যাল মিডিয়ায় বিতর্ক `লিন’

নিজে নিজেকেই বিয়ে করলেন। বিষয়টি আপনাকে অবাক করলেও এমন ঘটনাবিস্তারিত পড়ুন

unnamed (8)

হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার নন্দিত বাবুই পাখির বাসা

কামরুজ্জমান শাহীন,ভোলা॥ হারিয়ে যাচ্ছে প্রকৃতির বয়ন শিল্পী, স্থপতি এবং সামাজিকবিস্তারিত পড়ুন

shahrukh-Beggar

ভিক্ষুক যখন বলল “না খেয়ে আছি” জবাবে বলিউড বাদশাহ একি বললেন !

ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকতে বাধ্য হন সেলিব্রেটিরা। যার মানে, বাধ্য নাবিস্তারিত পড়ুন

  • টাকার অভাবে সকালের নাস্তাও খেতে না পারা আয়ার সন্তান পাশ করেছেন বিসিএস। জানুন সেই সংগ্রামী সময়ের গল্প!
  • দাঁত দিয়েই একসঙ্গে দুটি বিমান টানতে চান তিনি!
  • স্যারের চোখের জল মুছিয়ে দিল ছাত্ররা, তবে তার আগের কীর্তি জানলে চমকে উঠবেন?
  • অংকে পারদর্শী কুকুর! ভিডিওটি না দেখলে বিশ্বাসই করতে পারবেন না!
  • প্রায় রাতেই লাশের সঙ্গে সেক্স করতেন তিনি, অন্তত একশ’ লাশ (ভিডিও)
  • ৭ লাখ টাকায় কিশোরী মেয়েকে বিক্রি করলেন বাবা..!
  • সাত ঘণ্টা ফ্রিজে রেখে জোড়া লাগল বিচ্ছিন্ন কব্জি
  • মাধ্যমিক পরীক্ষা এড়াতে ছাত্রী উঠে পড়ল বটগাছে, এর আসল রহস্য কী ?
  • দেহ ব্যবসার আসর থেকে উলঙ্গ অবস্থায় তিন মেয়েকে ধরার পর যা ঘটলে জানলে অবাক হবেন
  • স্বামীর সঙ্গে একই বিছানায় শুয়ে অন্য মেয়ে! এরপর…
  • দেখুন একজন মুঘল বেগমকে এখন কী করতে হয়!
  • বিমান থেকে পড়ছে বোমা! কিন্তু কিছুই ধ্বংস হচ্ছে না বরং সৃষ্টি হচ্ছে!