সোমবার, মে ১, ২০১৭

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

দিনে পাঁচ-ছ’বার বালি খেয়েও সুস্থ আছেন

bali-1-324x215

দিনে পাঁচ-ছ’বার দু’মুঠো করে বালি খান তিনি। বিগত ৬৩ বছর ধরে নিয়মিত বালি খেয়ে আসছেন বারাণসী ভারতের নিবাসী কুসমাবতী। এই বিচিত্র অভ্যাসের কারণে তার শরীর অসুস্থ হওয়ার কথা থাকলেও উল্টো নীরোগ আছেন তিনি।সমবয়সী অন্য যে কোনো বৃদ্ধ বা বৃদ্ধার তুলনায় অনেক শক্তপোক্ত দেহ কুসমাবতীর। শরীরে এখনও থাবা বসাতে পারেনি জরা কিংবা অন্য কোনো বার্ধক্যজনিত রোগ। এখনও কৃষি কাজ করেন সকাল-সন্ধ্যা।

কিন্তু কুসমাবতী নামের এই মহিলার এমন সুস্বাস্থ্যের রহস্যটা কী? তার নিজের দাবি, প্রতিদিন নিয়মিত বালি খাওয়ার অভ্যাসই তার এই বার্ধক্যরূপী তারুণ্যের মূলে।

শুনতে যতই অদ্ভুত লাগুক, বারাণসী নিবাসী কুসমাবতী বিগত ৬৩ বছর ধরে নিয়মিত বালি খেয়ে আসছেন। দিনে পাঁচ-ছ’বার দু’মুঠো করে বালি খান তিনি।

কিন্তু কেন এমন অদ্ভুত অভ্যাস? কুসমাবতী দেবী জানালেন, তাঁর বয়স যখন বছর পনের, তখন এক বার দুরারোগ্য পেটের অসুখে শয্যাশায়ী হয়ে পড়েন তিনি। কোনো এক আত্মীয় পরামর্শ দেন, বালি খেলেই রোগমুক্তি ঘটবে। পরামর্শ শিরোধার্য করে বালি খেতে শুরু করেন কুসমাবতী। কয়েক দিনের মধ্যেই সেরে যায় রোগ। সেই শুরু। তারপর ৬৩ বছর কেটে গিয়েছে, কিন্তু বালি খাওয়ার অভ্যাস কুসমাবতী ছাড়েননি।

তার ধারণা, বালির মধ্যে এমন‌ কোনো গুণ রয়েছে, যা তাকে সুস্থ থাকতে সাহায্য করে। কারণ, তার দাবি, নিয়মিত বালি খাওয়ার ফলেই এই বয়সেও একেবারে সুস্থ রয়েছে তার দেহ।

কিন্তু বালি খেতে ঘেন্না করে না? কুসমাবতী জানান, ‘তা কেন! বরং বালি খেতে বেশ ভালোই। অনেকটা নুন-চিনির মিশ্রণ যেমন হয়, তেমনই নোনতা-মিষ্টি স্বাদ হয় বালির।’

কুসমাবতীর বাড়ির লোকেরা আপত্তি করেন না? বৃদ্ধার ছেলে রমেশ বললেন, ‘আপত্তি করব কেন? ছোটবেলা থেকেই তো মা-কে বালি খেতে দেখছি। আর কোনোদিন তো এর জন্য মায়ের শরীর খারাপ হয়েছে বলে দেখিনি। আর মা যে শুধু বালিই খান, তা তো নয়। অন্যান্য খাবারদাবারের পাশাপাশি কয়েক মুঠো বালিও খেয়ে নেন, অনেকটা ওষুধের মতোই। মায়ের বিশ্বাস, বালি খেলে শরীর ভালো থাকে। সেই বিশ্বাস যদি সত্যি হয়, তা হলে বালি খাওয়ায় বাধাই বা দেব কেন আমরা!’

তা রমেশ নিজেও মায়ের দেখাদেখি বালি খাওয়া শুরু করেন না কেন? রমেশ হেসে বলেন, ‘আরে না না। ও সব আমাদের কম্ম নয়। মা খেতে পারেন, কারণ মায়ের নিশ্চয়ই কোনো আলাদা ক্ষমতা রয়েছে। আমরা বালি খেলে অসুস্থ হয়ে পড়ব।’

রমেশ যা-ই বলুন, কুসমাবতীর ধারণা, নিয়মিত বালি খেলে শরীরের উপকার বৈ অপকার হয় না। এই ৭৮ বছর বয়সেও তাই মু‌ঠো মুঠো বালি গলাধঃকরণ করে চলেছেন তিনি।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

image

কোটি টাকার সোনার জামার মালিকের কী পরিণতি হল জানেন?

৪ বছর আগে কোটি টাকার জামা কিনে খবরের শিরোনামে এসেছিলেনবিস্তারিত পড়ুন

বিয়ে

বিয়ের আগে এই ৪ স্বাস্থ্য পরীক্ষা অবশ্যই করান

বিয়ের আগে সব দিক ভেবে চিন্তে, দেখে শুনেই তো আমরাবিস্তারিত পড়ুন

Blood

বরফের উপর দিয়ে যাওয়া ‘রক্তস্রোত’, কার রক্ত এটা? জানলে চমকে উঠবেন

পৃথিবীকে ঘিরে রয়েছে একাধিক রহস্য৷ যেগুলিকে ঘিরে মানুষের আগ্রহ প্রবলবিস্তারিত পড়ুন

  • যেভাবে যৌনকর্মীদের রক্ত চুষে খাচ্ছেন ভূমি মালিকরা
  • ২৩ বছরে ১০০ বার বক্ষ-নিতম্বর সার্জারি, অবশেষে…
  • যেভাবে বীর্য পাচার চলছে জানলে একেবারে আশ্চর্য হয়ে যাবেন!
  • স্বামীর যৌনাঙ্গ কেটে দিলেন স্ত্রী! কারণটা জানলে চমকে উঠবেন
  • প্রসব করাতে গিয়ে সদ্যজাতের মাথা ছিঁড়ল ডাক্তার
  • ‘আমাকে বাঁচান, না হলে মারা যাব’: সৌদি প্রবাসী
  • থানায় অভিযোগ নিয়ে আসা নারীকে দিয়ে গা মালিশ করালো পুলিশ
  • বিপদে পড়লে পালানোর উপায় জানে মাছ!
  • বয়স ৮৪, কিন্তু হাতে পিস্তল কথা বলে ‘দাদি’র
  • গরুর মাংস নেই, তাই ভাঙল বিয়ে!
  • সুন্দরী পুত্রবধুকে নিয়ে পালালেন শ্বশুর!
  • যৌতুক চাওয়া বরের গলায় জুতার মালা