সোমবার, মে ২৮, ২০১৮

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

প্রসব ফুটপাতে, মাস পার হলেও সাজা হয়নি কারও

ঢাকার তিনটি হাসপাতালে ঘুরে রাস্তায় সন্তান জন্ম এবং পরে শিশুটির মৃত্যুর ঘটনায় কারও বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়নি এক মাসেও। ঘটনাটি গণমাধ্যমে আসার পর তিনটি হাসপাতালই গঠন করে তদন্ত কমিটি। আশ্বাস নেয়া হয় ব্যবস্থা নেয়ার। কিন্তু এই ঘটনায় আদালতে একটি আবেদন করা হয়েছে যুক্তি দেখিয়ে কাউকে কিছু বলেনি হাসপাতাল তিনটি।

যে তিনটি হাসপাতলে ঘুরে পারভীন ফুটপাতে সন্তান জন্ম দিয়েছিলেন, তার মধ্যে দুটি হাসপাতালে গঠন করা তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে জমা পড়েছে। আর স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তদন্ত করেছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় নিজেই।

চলতি বছরের ১৬ অক্টোবর ভোরে গুলিস্তান গোলাপশাহ মাজারের বসে কাঁদছিলেন পারভীন বেগম। ওই সময়ে রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন সোহেল নামের এক যুবক। পারভীন তাকে ডেকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার আকুতি জানান। পরে পারভীনকে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান সোহেল। সেখানে প্রথমে পারভীনের স্বাভাবিক প্রসবের কথা বলা হয়। পরে চিকিৎসকরা জানান, সিজারের প্রয়োজন পড়বে। কিন্তু ওষুধ-পথ্য কিনতে দেড় হাজারের মতো টাকা দিতে না পারায় সে অস্ত্রোপচার আর হয়নি।

সংকটাপন্ন অবস্থায় পারভীনকে পাঠান হয় মিটফোর্ড হাসপাতালে। সেখানেও একই ঘটনা ঘটে। পরে সোহেল ভোরের দিকে পারভীনকে নিয়ে যান আজিমপুর ম্যাটারনিটিতে। কিন্তু সেখানেও পরিস্থিতির কোনো বদল হয়নি। প্রসব বেদনায় কাতরান মায়ের টাকা না থাকায় টানাহেঁচড়া করে হাসপাতাল থেকে বের করে দেন হাসপাতাল কর্মীরা। কিছুক্ষণ পরই ওই ম্যাটারনিটির গেটের সামনে সড়কের ওপর পড়ে যান পারভীন। সেখানেই এক ছেলে সন্তান প্রসব করেন তিনি। পথচারী ও আশপাশের কয়েকজন নারী এ সময় এগিয়ে এসে পারভীনকে শাড়ি পেঁচিয়ে আড়াল করে প্রসবে সাহায্য করেন।

সোহেল জানান, নবজাতক শিশুটি জন্ম নেওয়ার আনুমানিক মিনিট দুয়েক পরই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। এই দৃশ্য দেখে এবং পারভীনের কান্না শুনে এলাকাবাসী ও পথচারীরা এগিয়ে এসে ওই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করতে থাকে। ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ আসে। এক পর্যায়ে হাসপাতালের লোকজন এসে পারভীনকে ট্রলিতে তুলে ভেতরে নিয়ে প্রসব-পরবর্তী চিকিৎসার ব্যবস্থা করে।

এ ঘটনায় প্রত্রিকায় লেখালেখির পর সমালোচনার মুখে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পারভীনকে বিনামূল্যে চিকিৎসা করায়। আবার গত ১৯ অক্টোবর স্বপ্রণোদিত হয়ে রুল জারি করে বিচারপতি কাজী রেজাউল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর হাইকোর্ট বেঞ্চ।এ ঘটনায় দায়ীদের বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেয়া হবে না এবং ওই মাকে কেন ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে না তা রুলে জানতে চাওয়া হয়েছে।

পারভীনের প্রসবের ব্যবস্থা না করায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে জানতে চাইলে স্যার সলিমুল্লহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (মিটফোর্ড) পরিচালক ব্রায়ান হালদার বলেন, ‘এ ঘটনায় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছিল। ওই তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন চূড়ান্ত হয়েছে। তবে কাকে অভিযুক্ত করা হয়েছে কাকে শাস্তি দেওয়া হয়েছে সে বিষয়ে আমার তেমন কিছুই জানা নেই।’

‘যেহেতু এ বিষয়ে আদালত হস্তক্ষেপ করেছেন, তাই এটা আদালতই মীমাংসা করবে’-বলেন মিটফোর্ড পরিচালক।

পারভীনের চিকিসার ব্যপারে গাফিলতিতে কারা জড়িত জানতে গঠন করা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গঠন করা তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। কিন্তু সেই প্রতিবেদনে কাদেরকে চিহ্নিত করা হয়েছে, সে বিষয়ে কিছু জানাতে চায় না হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

জানতে চাইলে হাসপাতালের সহকারী পরিচালক (অর্থ ও ভান্ডার) খলিলুর রহমান বলেন, ‘আমরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছি। তবে যেহেতু এটা আদালতের বিষয় তাই এ ব্যাপারে আমাদের কোন কথা বলা উচিৎ নয়।’

আজিমপুর ম্যাটারনিটির তত্ত্বাবধায়ক ইশরাত জাহান বলেন, ‘আমরা পরিকল্পা অধিদপ্তরে আমাদের তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছি। সেখানে কে দায়ী আর কে অভিযুক্ত সবই বলা হয়েছে। যেহেতু এ বিষয়ে হাইকোর্টে একটি রুল রয়েছে তাই আমাদের এ ব্যাপারে কোন মন্তব্য করা ঠিক হবে না। ’

পারভীন এখন কোথায় আছেন, সে বিষয়ে কোনো তথ্য জানা যাচ্ছে না। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। পারভীনের বাবার বাড়ি যশোরের শার্শা থানায়। তিনি নেত্রকোণায় বিয়ে করেছিলেন। একটি মামলায় তার স্বামী এখন কারাগারে। নিউজটি ঢাকাটাইমস এর সৌজন্যে।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

চবিতে রাতভর ছাত্রলীগের সংঘর্ষ, ভাঙচুর

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শাখা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে দুইবিস্তারিত পড়ুন

ছাত্রলীগ সভাপতিকে কুপিয়ে-গুলি করে হত্যা পাবনায়

পাবনার ঈশ্বরদীতে ছাত্রলীগের এক নেতাকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যাবিস্তারিত পড়ুন

কোটি টাকার ‘দুর্নীতি’তে দুই খাদ্য কর্মকর্তা

রাজশাহীর তানোর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক নাজমুল হক এবং সদর খাদ্যবিস্তারিত পড়ুন

  • মানি লন্ডারিং | আপন জুয়েলার্সের ২ মালিকের মুক্তিতে বাধা নেই
  • অভিভাবককে বেঁধে পেটালেন শিক্ষকরাঃ দোষ অনিয়মের প্রতিবাদ
  • এবার সর্বনাশ ! দেশের বাজারে অবাধে বিক্রি হচ্ছে ভারী ধাতু মিশ্রিত মাছ
  • ২১ নারী পোশাক কর্মী আহত বাসে ট্রাকের ধাক্কায়
  • সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামান নিখোঁজ
  • যত বিয়ে, বিচ্ছেদ তার এক চতুর্থাংশ ময়মনসিংহে
  • দ্বিতীয় দিনের মতো জিজ্ঞাসাবাদে বেসিকের বাচ্চু
  • অস্ত্রসহ সন্দেহভাজন জঙ্গি আটক
  • ‘জবরদস্তি’ এবারও এসএসসির ফরম পূরণে বাড়তি টাকা আদায়
  • সন্তানকে মাঝে রেখে বাবা-মা ঘুমিয়ে পড়েন, চুরির অভিযোগ ঢাকা মেডিকেল থেকে
  • ২০ মাস পূর্ণ হয়েছে ২০ নভেম্বর, তনুর পরিবারকে ঢাকায় ডেকেছে সিআইডি
  • মুরগিকে অপহরণ করে ধর্ষণ করল কিশোর!