মঙ্গলবার, নভেম্বর ১৩, ২০১৮

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

বছরে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হচ্ছে ৩০০০ শিশু

বাংলাদেশে প্রতিবছর প্রায় ৩ হাজার শিশু ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হচ্ছে। এসব শিশুর অধিকাংশই ডায়াবেটিস-জনিত সমস্যার কারণে অন্ধ হওয়ার ঝুঁকিতে আছে।

বুধবার রাজধানীর মহাখালীতে ব্র্যাক ইন সেন্টারে আলোচনা অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানানো হয়।

অরবিস ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির যৌথ উদ্যোগে পরিচালিত একটি প্রকল্পের মূল্যায়ন প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

অরবিস ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ ‘ডায়াবেটিক শিশুদের চক্ষুসেবার সমন্বিত পদক্ষেপের পারস্পরিক অভিজ্ঞতা বিনিময়’ শীর্ষক এ আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ডায়াবেটিক শিশুদের অন্ধত্বের ঝুঁকি থেকে রক্ষা করতে সমন্বিত চিকিৎসার পদক্ষেপ নেওয়া জরুরি।

বাংলাদেশসহ বিশ্বব্যাপী ডায়াবেটিক শিশুর সংখ্যা পাল্লা দিয়ে বাড়ছে, উল্লেখ করে প্রকল্প মূল্যায়ন প্রতিবেদনে বলা হয়, ডায়াবেটিস আক্রান্ত শিশুরা সঠিক চিকিৎসার অভাবে চোখের বিভিন্ন রোগে ভুগছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে শিশুরা একেবারেই অন্ধ হয়ে যাচ্ছে।

অরবিস ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ জানায়, আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থা ইউএসএআইডির ‘শিশু অন্ধত্ব প্রতিরোধ কর্মসূচি’র সহযোগিতায় অরবিস ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতি যৌথভাবে এ প্রকল্পটি গ্রহণ করে।

এ প্রকল্পের মাধ্যমে দেড় বছরে রাজধানীর বারডেম ও বগুড়া ডায়াবেটিক হাসপাতালে ৭ হাজারেরও বেশি চক্ষুরোগীকে সমন্বিত সেবা দেওয়া হয়। এর মধ্যে ৩ হাজারের অধিক ডায়াবেটিস আক্রান্ত শিশু।

আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন এশিয়া-প্যাসিফিক অপথামোলজি একাডেমির ভাইস প্রেসিডেন্ট ও বাংলাদেশের বিশিষ্ট চক্ষু বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. আভা হোসেন।

বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির সেক্রেটারি জেনারেল ডা. সাইফ উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন অরবিস ইন্টারন্যাশনালের রিসার্চ ডিরেক্টর ড. নাথান জি কংডন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের চক্ষু বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. জাফর খালেদ, ইউএসএআইডির ঢাকা অফিসের হেলথ সার্ভিস ডেলিভারি পিলার লিড এডনা জোনাস এবং অরবিস ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ডা. মুনীর আহমেদ।

অনুষ্ঠানে প্রকল্প মূল্যায়ন প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন ড. নওশাদ ফায়েজ।

এছাড়া, বারডেম হাসপাতালের চিলড্রেন ইন ডায়াবেটিস প্রকল্পের সমন্বয়ক ডা. বেদওয়ারা জাবিন এই প্রকল্পের অভিজ্ঞতা এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের দুজন চক্ষু চিকিৎসক গবেষণালব্ধ তথ্য উপস্থাপন করেন।

অনুষ্ঠানে বক্তারা শিশুদের ডায়াবেটিস-জনিত অন্ধত্ব প্রতিরোধে বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সেন্টারের সহযোগিতায় আরো সচেতনতামূলক কার্যক্রম গ্রহণ, হাসপাতালের বাইরে বিভিন্ন প্রত্যন্ত এলাকায় প্রাথমিক চক্ষু চিকিৎসা কেন্দ্র, ডাক্তার-নার্স-মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েটসহ সংশ্লিষ্টদের সমন্বিত প্রশিক্ষণ কর্মসূচি গ্রহণের ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

আপনি মানসিক রোগী কিনা বুঝবেন কিভাবে?

ওসিডি বা অবসেসিভ কম্পালসিভ ডিজঅর্ডার একটি স্নায়বিক ও মানসিক রোগ।বিস্তারিত পড়ুন

শীত হোক বা গ্রীষ্ম—সারা বছরেই পায়ে দুর্গন্ধ ?

পায়ে প্রচণ্ড দুর্গন্ধ হয়? শীত হোক বা গ্রীষ্ম—সারা বছরেই এরবিস্তারিত পড়ুন

রেফ্রিজারেটর খুললেই নাকে হাত, বাজে গন্ধ ?

অনেক রেফ্রিজারেটর খুললেই নাকে হাত দিতে হয়? অনেক কারণেই এইবিস্তারিত পড়ুন

  • খালি পেটে না খাওয়া ভালো যেসব খাবার
  • ইতিবাচক জীবনের জন্য শ্বাস নেবেন যেভাবে
  • পুরুষের ক্যানসারের যেসব লক্ষণকে অবহেলা করা কারো উচিত নয়
  • করোনারি হৃদরোগের নীরব ৪টি লক্ষণ, জানা দরকার সকলেরই
  • স্তন ক্যানসারের কারণ ও লক্ষণ জানেন?
  • এলার্জির সমস্যা কমাবে আপনি পাবেন একটুখানী স্বস্তি
  • জানা দরকারঃ ক্যান্সারের শীর্ষ অজানা লক্ষণগুলো
  • ২ কোটি ২৫ লাখ শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে
  • ধূমপানের কুফলে শরীরের প্রায় সব অঙ্গই সরাসরি আক্রান্ত হয়, তবে ফুসফুস এবং হৃদযন্ত্রই বেশি আক্রান্ত হয়।
  • বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দূত হওয়ায় সায়মা ওয়াজেদকে অভিনন্দন
  • পেট ভরে ভাত খাবেন না। কী হতে পারে জানেন?