মঙ্গলবার, আগস্ট ২২, ২০১৭

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

বরগুনায় দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু

বরগুনার পূর্ব ঢলুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী সাদিয়া (৭)। পৃথিবীর আলো দেখার আগেই তার বাবা-মায়ের বিচ্ছেদ হয়।

মানসিক ভারসাম্যহীন মা উদভ্রান্ত হয়ে ঘোরেন শহরের ওলি-গলিতে। শহরের ঢলুয়া এলাকার সরকারি খাদ্য গুদামসংলগ্ন ছোট খালা মুন্নির সংসারেই তার বেড়ে ওঠা। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে খালা মুন্নি আক্তারের ঘরের মাচানে রহস্যজনকভাবে মৃতদেহ পাওয়া যায় সাদিয়ার। অসুস্থতাজনিত কারণে সাদিয়ার মৃত্যু হয়েছে দাবি করেন সাদিয়ার খালা মুন্নি। কিন্তু সাদিয়ার সহপাঠী এবং অন্য স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মৃত্যুর আগে সাদিয়ার কোনো অসুস্থতাই ছিল না।

সাদিয়ার সহপাঠী স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী রিপা (৭) জানায়, মৃত্যুর দুই দিন আগে একসঙ্গে স্কুলে পরীক্ষা দিয়েছে তারা। মৃত্যুর আগের দিনও একত্রে খেলাধুলা করেছে। সাদিয়ার বড় ভাই আব্দুল্লাহর (২০) স্ত্রী রিমা (১৬) জানান, মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টা আগেও সাদিয়া তার সঙ্গে দেখা করে গেছে। সে সময় তার কোনো অসুস্থতাই ছিল না। অন্যদিকে, সাদিয়ার খালা মুন্নি আক্তার বলছেন, কয়েকদিন ধরেই অসুস্থ ছিল সাদিয়া। তার বুকে ব্যাথা ছিল বলেও জানান তিনি।

মৃতদেহ উদ্ধারের বর্ণনায় একেকবার একেক রকম তথ্য দিচ্ছেন খালা মুন্নি আক্তার। ঘটনার সময় তার শাশুড়ি ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন বলে দাবি করলেও তা অস্বীকার করছেন শাশুড়ি পিয়ারা বেগম (৫৫)। পিয়ারা বেগম জানান, ঘটনার দিন সকাল থেকেই অন্যান্য দিনের মতো ক্রোক স্লুইস এলাকার একটি মিলে কাজ করছিলেন তিনি। বিকেল ৩টার দিকে বাড়ি ফিরে তিনি তাদের ঘরের সামনে অনেক লোকজন দেখতে পান। ভিড় ঠেলে ভেতরে ঢুকতেই তিনি সাদিয়ার লাশ দেখতে পান।

মুন্নি আক্তারের শ্বশুর মো. মোখলেস হাওলাদার (৬৫) জানান, তিনি একজন দরিদ্র মাছ বিক্রেতা। দিনভর তিনি শহরের মাছ বাজারে মাছ কেনা বেচায় ব্যস্ত থাকেন। তার স্ত্রী পিয়ারা বেগমও প্রায়ই ব্যস্ত থাকেন একটি করাতকলের মিলে জ্বালানি কাঠ সংগ্রহের কাজে। তাদের ছেলে সোহেল (মুন্নি আক্তারের স্বামী) কাজের সন্ধানে গত দুই মাস ধরে ঢাকায় রয়েছেন। শ্বশুর মোখলেস হাওলাদারের সঙ্গে কথা বলে আরো জানা গেছে, মাসখানেক ধরে তার শালার জামাই মো. জালাল হোসেন তাদের বাসায় পেয়িং গেস্ট হিসেবে দুপুরের ভাত খেতেন। ঘটনার দিন ঘরের মাচানে যখন সাদিয়ার মৃতদেহ পাওয়া যায় তখন বাসায় শুধু মুন্নি আক্তার ও রিক্সাচালক জালাল ছিলেন বলে তিনি জানান।

সরেজমিন অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসা সাদিয়ার অস্বাভাবিক মৃত্যুর এসব তথ্য জানানো হয় বরগুনা থানায়। ওইদিনই রাত ১০টার দিকে সদর উপজেলার বুড়িরচর ইউনিয়নের মাইঠা গ্রামে সাদিয়ার মামা আ. রাজ্জাক চৌকিদারের বাড়িতে দাফনের পূর্ব মুহূর্তে সাদিয়ার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য তা মর্গে পাঠায় পুলিশ। এ সময় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাদিয়ার খালা মুন্নি আক্তারকেও আটক করা হয়। বরগুনা থানার ওসি রিয়াজ হোসেন পিপিএম বলেন, “সাদিয়ার খালা মুন্নি আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে আনা হয়েছে। সন্দেহভাজন জালাল হোসেনকে এখনো পাওয়া যায়নি বলে জানান তিনি। সাদিয়ার লাশের ময়নাতদন্ত হয়েছে। প্রতিবেদন পেলে এ বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

বগুড়ায় দুই ট্রাকের সংঘর্ষে নিহত ৩

বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলায় দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে তিনজন নিহত হয়েছেন।বিস্তারিত পড়ুন

ধর্ষণ মামলায় মাদ্রাসাছাত্র কারাগারে

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামিবিস্তারিত পড়ুন

পছন্দের মেয়ের সঙ্গে বিয়ে না দেয়ায় আত্মহত্যা

বগুড়ার শেরপুরে পছন্দের মেয়ের সঙ্গে বিয়ে না দেয়ায় নিজ ঘরেবিস্তারিত পড়ুন

  • বগুড়ার রাস্তায় ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে হতভাগা এক যুবকের লাশ!
  • বগুড়ায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২
  • বগুড়ায় ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের পর গর্ভপাত, গ্রেফতার ২
  • প্রেম প্রত্যাখ্যান করায় মারপিট, গ্রেফতার ১
  • স্ত্রীর ছোড়া গরম পানিতে স্বামীর মৃত্যু
  • বগুড়ায় চেয়ারম্যান পদে ভোট স্থগিত
  • বগুড়ায় যুবলীগের অবরোধে ভয়াবহ যানজট
  • বগুড়ায় বাস ও অটোরিকশার সংঘর্ষে নিহত ৩
  • গ্লোবাল টিচার পুরস্কারের জন্য মনোনীত বগুড়ার শাহনাজ পারভীন
  • স্ত্রীর শরীরে ফুটন্ত পানি দিলেন স্বামী
  • বগুড়ায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই ‘ডাকাত’ গুলিবিদ্ধ