বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৮

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

বাসা ভাড়া করার আগে যে বিষয়গুলো জরুরি

নগর জীবনে প্রধান জরুরি বিষয় হচ্ছে একটি বাসা ভাড়া করা। কিন্তু বাসা ভাড়া করতে গেলে কতই না ঝক্কি-ঝামেলা পোহাতে হয়। খুঁটিনাটি অনেক বিষয়ে খোঁজ নিতে হয়। সব বিষয়ে একমত হতে না পারলেও জরুরি কয়েকটি বিষয়ের সমাধান হলে সেই বাসাটা মন্দ নয়। তেমন কিছু বিষয় নিয়েই আজকের আয়োজন-

গাড়ি চলাচল: প্রধান সড়ক থেকে বাসা পর্যন্ত যেতে রাস্তাটি ভালো করে দেখে নিন। আপনার মালামাল বহন করা গাড়িটি অনায়াসে বাসা পর্যন্ত পৌঁছতে পারবে কিনা? তা না হলে বাসা পর্যন্ত মালামাল টেনে নেওয়া কঠিন হয়ে পড়বে। এছাড়া আপনার ব্যক্তিগত গাড়িটিও নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়তে পারে।

মালামাল ওঠানামা: নতুন বাসায় মালামাল ওঠানামার যথেষ্ট ব্যবস্থা আছে কিনা দেখে নিবেন। সরু সিঁড়ি হলে আপনার ভারি মালামাল তুলতে অনেকটাই বেগ পেতে হবে। নিজের মালামালের পরিমাণ বুঝে বাসা পছন্দ করতে ভুলবেন না।

বাসার দেয়াল: বাসা বা অ্যাপার্টমেন্ট ভাড়া নিতে চাইলে প্রথম দেখাতেই দেয়ালটি দেখে নিবেন। দেয়ালে ছোপ ছোপ ভেজা দাগ রয়েছে কিনা। এতে দেখতে যেমন খারাপ লাগবে, তেমন স্বাস্থ্যহানীরও সম্ভাবনা রয়েছে। ভেজা চার দেয়ালের মাঝে শ্বাস-প্রশ্বাসে সমস্যা হতে পারে।

বৈদ্যুতিক সংযোগ: টেলিভিশন, ফ্রিজ বা অন্যান্য কাজে বাসার সবদিকে বৈদ্যুতিক সংযোগ দরকার। তাই বাসায় কতটি সকেট বসানো আছে, তা দেখে নিবেন। যদি লম্বা তার টেনে বৈদ্যুতিক সংযোগ নিতে হয়, তাহলে বিপদ। দুর্ঘটনা এড়ানো কঠিন হবে।

গাড়ি পার্কিং: গাড়ি বা মোটরসাইকেল থাকলে বাসার পার্কিং ব্যবস্থাটা দেখে নিন। যদি পার্কিং ব্যবস্থা না থাকে, তাহলে বাসাটি দেখার দরকার নেই। আর যদি থাকে, তাহলে সেখানে নিরাপত্তা ও পর্যাপ্ত স্থান রয়েছে কিনা? খোলা স্থান হলে প্রহরী ও সিসি ক্যামেরা আছে কিনা? এসব নিশ্চিত হয়ে নিন।

জানালা দেখুন: বাসা দেখার সময় প্রতিটি জানালা দিয়ে আশপাশে তাকিয়ে দেখুন। জানালায় চোখ রাখলে পাশেই রেস্টুরেন্ট, রাস্তার আলো বা আবর্জনার স্তূপ দেখলে বাসাটি না নেওয়াই ভালো।

মালিক: প্রথমেই মালিকের সঙ্গে কথা বলুন। যদি তিনি ওই বাড়িতে থাকেন তবে অসুবিধা নেই। আর না থাকলে জানবেন, তিনি কতদিন পরপর ভাড়াটিয়াদের খোঁজ নিতে আসেন? কারণ ভাড়াটিয়াদের দেখভাল করা মালিকের অন্যতম দায়িত্ব। অ্যাডভান্স করার আগে পারলে আশেপাশে তার সম্পর্কে খোঁজ নিন।

প্রতিবেশী: আপনার ঠিক পাশের দরজায় যারা থাকেন, অন্তত তাদের খোঁজ নিন। যে কোনো সময় কাজে লাগবে। যদি সম্ভব হয়, প্রতিবেশী সম্পর্কেও মালিকের কাছে খোঁজ নেওয়ার চেষ্টা করুন।

বিক্রি: যে বাড়িতে উঠছেন, তা বিক্রির চেষ্টা চলছে কিনা? যদি তাই হয়, তাহলে বিক্রি হওয়া মাত্রই আপনাকে দ্রুত বাসা ছেড়ে দিতে হবে। আর এতে হঠাৎ করেই বিড়ম্বনায় পড়তে হবে।

পানি ও গ্যাস: বাড়িতে সবসময় পানি এবং গ্যাস থাকে কিনা? বাসার সব সংযোগ থেকে পানি আসে কিনা পরীক্ষা করে নিন। পানির উৎস এবং নির্দিষ্ট সময় পানি সরবরাহ বন্ধ থাকলে জেনে নিন। পাশাপাশি গ্যাসের অবস্থাও জেনে নিতে হবে।

অ্যাডভান্স: বাসা পছন্দ হয়ে গেলে অ্যাডভান্স করতে হয়। সে ক্ষেত্রে টাকার প্রাপ্তি রশিদ নিজের কাছে সংগ্রহ করে রাখুন। কত তারিখে বাসায় উঠবেন, তা-ও জানিয়ে রাখুন।

মেরামত: বাসায় ওঠার আগে পুরো বাসাটা মেরামতের জন্য বলুন। যদিও এসব ঠিকঠাক করে দেওয়া বাড়িওয়ালার দায়িত্ব। তবুও কথা বলে নিশ্চিত হয়ে যাওয়া ভালো।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

১০ জেলায় নতুন ডিসি

দেশের ১০ জেলায় নতুন জেলা প্রশাসক (ডিসি) নিয়োগ দেয়া হয়েছে।বিস্তারিত পড়ুন

ইউএনওর ব্যতিক্রমী উদ্যোগ ‘মহানুভবতার দেয়াল’

সমাজে মূলত মধ্যবিত্ত ও দারিদ্র্যগ্রস্ত মানুষের সংখ্যাই বেশি। এর মধ্যেবিস্তারিত পড়ুন

রোহিঙ্গা ইস্যু: আন্তর্জাতিক পুরস্কার পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

রোহিঙ্গা ইস্যুতে দূরদর্শী, বিচক্ষণ নেতৃত্ব ও অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপনের জন্যবিস্তারিত পড়ুন

  • তিন খেলোয়াড়কে ফ্ল্যাট দিলেন প্রধানমন্ত্রী
  • নতুন সড়ক আইনের প্রতিবাদে রংপুরে বাস চলাচল বন্ধ
  • খালাস পেলেও মিলছে না মুক্তি, রায়ের অপেক্ষায় ৬ মাস
  • পরিবেশ দূষণে বছরে ক্ষতি ৫২ হাজার কোটি টাকা
  • খালেদার স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রতিবেদন দিয়েছে মেডিকেল বোর্ড
  • লোকাল বাসে চড়ে বাসায় ফিরলেন প্রতিমন্ত্রী
  • সংসদে ১০০ শীর্ষ ঋণ খেলাপীর তালিকা প্রকাশ
  • সরকারি হলো আরো ১৪ কলেজ
  • রাজধানীসহ বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প অনুভূত
  • বিশ্বে ‘অতি ধনী’ মানুষ বৃদ্ধির হারে শীর্ষে বাংলাদেশ
  • বার্নিকাটকে সুষ্ঠু নির্বাচনের পদক্ষেপ জানালেন প্রধানমন্ত্রী
  • ভাঙন আতঙ্কে উত্তর-দক্ষিণ