শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০১৭

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় ইন্টারনেটের গতি কম থাকবে আরো ১৫ দিন

ইন্টারনেট

রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় কমে গেছে ইন্টারনেটের গতি। ইন্টারনেটের এই ধীর গতি আরো ১৫-২০ দিন থাকবে বলে ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (আইএসপিএবি) সূত্রে জানা গেছে।

আইএসপিএবি সূত্রে জানা যায়, সমুদ্রের তলদেশে থাকা ফাইবার ক্যাবল নেটওয়ার্কের তার কাটা পড়ায় দেশে ইন্টারনেটের গতি কমে গেছে। সিঙ্গাপুর থেকে চেন্নাইয়ের দিকে ৫৬ কিলোমিটার দূরে সমুদ্রের তলদেশে (সাবমেরিন) ফাইবার অপটিক তার বুধবার (৪ জানুয়ারি) কাটা পড়ে। এরপর থেকে বাংলাদেশ থেকে শুধু পশ্চিম দিক (ইউরোপ প্রান্ত) দিয়ে তথ্য (ডেটা) আদান-প্রদান চলছে।

ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (আইএসপিএবি) সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক জাগো নিউজকে বলেন, এক মাস আগে কাটা পড়ে ভারতি এয়ারটেলের ‘আই ২ আই’ সাবমেরিন ক্যাবল। এছাড়া গত ডিসেম্বর মাসে সাইক্লোন ভার্দার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয় ‘আইমিউই’সহ ভারতের কয়েকটি সাবমেরিন ক্যাবল নেটওয়ার্ক। সর্বশেষ বুধবার কাটা পড়ে ভারতের টাটা ইনডিকম ক্যাবল বা টিআইসি। এসব কারণে ইন্টারনেটের গতি অনেক কমে গেছে। গতি স্বাভাবিক হতে ন্যুনতম ১৫-২০ দিন সময় লাগতে পারে।

ক্ষতিগ্রস্ত সাবমেরিন ক্যাবল মেরামতের কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে এমদাদুল হক বলেন, বুধবার কাটা পড়া টাটা ইনডিকম ক্যাবল বা টিআইসি ক্যাবলের মালিক ভারতীয় টাটা কোম্পানি। শুনেছি এটি ঠিক করার জন্য এখনো কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। তবে এক মাস আগে কাটা পড়া এয়ারটেলের ‘আই ২ আই’ ক্যাবলটি ঠিক করার জন্য ভারতীয় মহাসাগরের দিকে জাহাজ রওনা করেছে। এ লাইনটি ঠিক হলে দেশে ইন্টারনেটের গতি স্বাভাবিক হবে। তবে ক্ষতিগ্রস্ত এসব ক্যাবল ঠিক করতে ন্যুনতম ১৫-২০ দিন সময় লাগে।

রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকার বাসিন্দা আশিকুর রহমান জানান, আগে বাফারিং ছাড়াই ইউটিউবে ভিডিও দেখতে পারতাম। কিন্তু গত দুই দিন ধরে ভিডিও দেখাতো দূরে থাক নিজের মেইল চেক করতে পারি না। শুধু লোডিং দেখায়। চারদিকে বলা হচ্ছে ডিজিটাল বাংলাদেশ কিন্তু ইন্টারনেটের গতির কোন উন্নতি নাই।

প্রসঙ্গত, সাম্প্রতিক কালে বাংলাদেশের দৈনিক ইন্টারনেট ব্যবহার ৪০০ জিবিপিএস ছাড়িয়ে গেছে। ৪০০ জিবিপিএসের মধ্যে ১২০ জিবিপিএস নেয়া হয় বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি লিমিটেড (বিএসসিসিএল) থেকে এবং ১৮০ জিবিপিএস নেয়া হয় ভারতের আইটিসি অপারেটরদের মাধ্যমে। অর্থ্যাৎ বাংলাদেশে ৭৫ শতাংশ ব্যান্ডউইথ নেয়া হয় আইটিসির মাধ্যমে। এই আইটিসি ব্যান্ডউইথ ভারতের টাটা কমিউনিকেশন এবং ভারতী এয়ারটেল নামে দুটি কোম্পানি বাংলাদেশকে দেয়। তাই ভারত মহাসাগরে কোনো সাবমেরিন ক্যাবল ক্ষতিগ্রস্ত হলে এর প্রভাব পড়ে বাংলাদেশে।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

৯৯৯

৯৯৯ নম্বরে কৌতূহলের ফোনই বেশি আসছে!

দেশ প্রথমবারের মতো চালু করা জরুরি প্রয়োজনে তাৎক্ষণিক সহায়তা দেওয়ারবিস্তারিত পড়ুন

জাকারবার্গ

সন্ত্রাসবাদ ঠেকাতে ভবিষ্যতের ফেসবুকে থাকবে ‘কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা’

ফেসবুকে যারা আজগুবি খবর ছড়ান, সন্ত্রাসবাদে উস্কানি দেন কিংবা সহিংসতায়বিস্তারিত পড়ুন

আইফোন

ভারতে তৈরি আইফোন কম দামে!

শিগগিরই ভারতে আইফোন তৈরি শুরু করতে যাচ্ছে অ্যাপল। আইফোন এসইবিস্তারিত পড়ুন

  • দুর্নীতির অভিযোগে কারাগারে স্যামসাং প্রধান
  • আজীবন ফ্রি ইন্টারনেট সুবিধা নিয়ে বাজারে আসলো যে মোবাইল নাম ও দাম জেনে নিন…
  • ফেসবুক লাইভ টিভিতে দেখতে অ্যাপ উন্মুক্ত
  • একসঙ্গে ১০৪টি স্যাটেলাইট মহাকাশে পাঠিয়ে ভারতের ইতিহাস
  • অবিশ্বাস্য ! মঙ্গলে শহর গড়ার ঘোষণা !
  • নোকিয়া ফোনের নতুন চমক, পুনরায় বাজারে আনছে ৩৩১০!
  • ‘ভালোবাসা দিবসে’ এবার যে ভাবে চমকে দেবে ফেসবুক!
  • ‘ফেসবুক লাইট’ ব্যবহারকারী ২০ কোটি
  • ডাউনলোড সুবিধা নিয়ে আসছে ইউটিউব গো
  • আমেরিকার ভিসা পেতে হলে ফেসবুকের পাসওয়ার্ড জানাতে হবে মার্কিন সরকারকে
  • ডট বাংলার বিশেষ শব্দের ডোমেইনের দাম বেশি
  • অবশেষে পোস্ট থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা আয়ের সুবিধা চালু করেছে ফেসবুক