মঙ্গলবার, অক্টোবর ২৪, ২০১৭

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে টেলিযোগাযোগ সুবিধা ৩ দিনের মধ্যে

রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে আগামী তিন দিনের মধ্যে টেলিযোগযোগ সুবিধা চালু করা হবে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

তিনি বলেন, ‘রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে আগামী তিন দিনের মধ্যে টেলিটকের ২-জি নেটওয়ার্ক চালু করা হবে। এ বিষয়ে ইতোমধ্যে কাজ শুরু হয়েছে।’

শনিবার বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) সভাকক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তারানা হালিম। রোহিঙ্গাদের কাছে মোবাইল সিম বিক্রি নিয়ন্ত্রণ ও মনিটরিংসংক্রান্ত সভা শেষে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পগুলোতে টেলিটকের বুথ খোলা হচ্ছে। সেখানে ১৬/১৭টি কেন্দ্র খোলা হবে। ভবিষ্যতে রোহিঙ্গাদের ক্যাম্প বাড়লে সে অনুযায়ী বুথও বাড়ানো হবে। সেখানে রোহিঙ্গারা এসে ন্যূনতম চার্জে তাদের প্রয়োজনমতো লোকাল কল করতে পারবে।’

তিনি বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের কাছে যারা সিম বিক্রি করছে তাদের শনাক্ত করবে বিটিআরসি। তাদেরকে আইনের আওতায় নিয়ে এসে কঠিন শাস্তি দেওয়া হবে।’

তারানা হালিম বলেন, ‘আমরা শরণার্থীদের জন্য মানবিক। তাদের খাদ্য, স্বাস্থ্য নিয়ে আন্তরিক। তাদের যোগাযোগের বিষয় নিয়ে আমরাও আন্তরিক। রোহিঙ্গারা বাংলাদেশি সিম ব্যবহার করছে, সম্প্রতি এমন খবর গণমাধ্যমে প্রকাশ হয়েছে। মূলত কিছু অসাধু ব্যবসায়ী, সিম বিক্রেতা নিজের নামে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম কিনে রোহিঙ্গাদের কাছে বিক্রি করছে। কিন্তু নিজের নামে কেনা সিম রোহিঙ্গাদের কাছে বিক্রি করা অপরাধ। যাদের বায়োমেট্রিক করা সিম রোহিঙ্গাদের হাতে গেছে তাদের বিরুদ্ধেও কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অথবা যদি কোনো অপারেটর বা ব্যবসায়ী এর সঙ্গে জড়িত থাকে তাহলে সে বিষয়েও তদন্তসাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রয়োজনে এজন্য আমরা কঠোর হবো। মোবাইল অপারেটরদের টাওয়ারভিত্তিক ১ জুলাইয়ের পর সেই এলাকায় কোন কোন সিম সচল হয়েছে তা শনাক্ত করা হচ্ছে। বিক্রেতাদের তালিকাও আমাদের কাছে আছে।’

রোহিঙ্গাদের কাছে সিম বিক্রি প্রসঙ্গে তারানা হালিম বলেন, ‘যেসব রোহিঙ্গা নিবন্ধনের আওতায় আসছে তাদের কাছে সিম বিক্রি করা যাবে কি না, সেটি পরবর্তীকালে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের সিদ্ধান্তের পর নির্ধারণ করা হবে।’

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো. জহিরুল হকসহ পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

শনিবার রাত ৯টা ৩০ মিনিটে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে জাতিসংঘ মহাসচিব ফোনে যা বললেন

রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের প্রতি অকুণ্ঠ সমর্থন জানিয়েবিস্তারিত পড়ুন

আইএলও কনভেনশনের পরিপন্হী শ্রম আইনসমূহ সংশোধনের দাবি

শ্রম আইনের যে সকল ধারা দেশের সংবিধান, সার্বজনীন মানবাধিকার ঘোষণা,বিস্তারিত পড়ুন

  • রুপসী বাংলার কবি জীবনানন্দ দাশের ৬৩তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ
  • লন্ডন গেলেন মাননীয় রাষ্ট্রপতি চিকিৎসার জন্য
  • সেপ্টেম্বরেও বেড়েছে মূল্যস্ফীতি
  • কমেছে দারিদ্র্য, বেড়েছে বৈষম্য
  • রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের ঔদার্যের প্রশংসায় আইওএম
  • ’সরকারি মহলের ভুল ব্যাখ্যায় প্রধানমন্ত্রী অভিমান করেছেন’
  • ‘সন্তানকে আগুনে ছুড়ে আমাকে ধর্ষণ করে সেনারা’
  • আসছেন মালয়েশিয়ার উপপ্রধানমন্ত্রী, যাবেন রোহিঙ্গাদের দেখতে
  • ঢাকা মহানগরীতে শনিবার থেকে ভোটার তালিকা হালনাগাদ
  • মাত্র এক সপ্তাহের ব্যবধানে সবজির দাম বেড়েই চলছে
  • মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গা নারীদের জন্মনিয়ন্ত্রণে সচেতন করার উদ্যোগ
  • বিবিসির অনুসন্ধানে আরসার কার্যক্রমের সত্যতা (ভিডিও)