বুধবার, নভেম্বর ২২, ২০১৭

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

”শান্তি প্রতিষ্ঠায় ভারতকে সহযোগিতা করতে চায় বাংলাদেশ”

দক্ষিণ এশিয়ায় শান্তি প্রতিষ্ঠায় ভারত ও প্রতিবেশী অন্যান্য দেশকে সহযোগিতা করতে চায় বাংলাদেশ একথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আজ বৃহস্পতিবার সকালে খুলনা-কলকাতা রুটে বন্ধন এক্সপ্রেস ট্রেন চলাচল, দ্বিতীয় ভৈরব ও দ্বিতীয় তিতাস সেতুর ওপর ট্রেন চলাচল এবং ঢাকা-কলকাতা মৈত্রী ট্রেনের যাত্রীদের ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস সুবিধার উদ্বোধন করে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

ঢাকার গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আর ভারতের দিল্লিতে নিজ কার্যালয় থেকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে একে একে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন দুদেশের মধ্যে ট্রেনের তিনটি নতুন সেবার। এ সময় তাঁদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কলকাতা থেকে যুক্ত হয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও।

প্রথমে ঢাকা-কলকাতা মৈত্রী ট্রেনের যাত্রীদের জন্য ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস সুবিধা, এর পর দ্বিতীয় ভৈরব ও দ্বিতীয় তিতাস সেতুর ওপর ট্রেন চলাচল এবং শেষে খুলনা-কলকাতা বন্ধন এক্সপ্রেস ট্রেন চলাচলের উদ্বোধন করা হয়।

উদ্বোধনের পর দেওয়া বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৬৫ সালের আগে দুই দেশের মধ্যে যেসব রেল যোগাযোগ ছিল, তার সবই চালু করার চেষ্টা করছে বাংলাদেশ ও ভারত সরকার।

‘দক্ষিণ এশিয়া একটি শান্তিপূর্ণ অঞ্চল গড়ে তোলার লক্ষ্যে আমরা ভারত এবং অন্যান্য নিকট প্রতিবেশীর সঙ্গে সহযোগিতা করতে চাই। আমি নিশ্চিত যে, আমাদের দুদেশের কল্যাণের জন্য আগামীতে এ ধরনের আরো অনেক আনন্দঘন মুহূর্ত অপেক্ষা করছে। আমাদের অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে আমি আপনাদের সঙ্গে কাজ করার জন্য সব সময় আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষায় থাকব’, বলেন প্রধানমন্ত্রী।

‘বন্ধন শুধু রেলের বন্ধন না, আমাদের এই বন্ধন যেন আমাদের দুই দেশের জনগণের মাঝে একটা বন্ধন সৃষ্টি করে সার্বিক আর্থসামাজিক উন্নয়নের পথে আমরা এগিয়ে নিয়ে যেতে পারি, সেটাই আমাদের কাম্য’, যোগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

ইমিগ্রেশন সুবিধা ও বন্ধন ট্রেন চালুর মাধ্যমে দুই দেশের জনগণের মধ্যে যোগাযোগ বাড়বে। এতে দুই দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় পৌঁছাবে বলে আশাবাদ জানান ভারতের প্রধানমন্ত্রী।

আর দিনটিকে ঐতিহাসিক বলে উল্লেখ করেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু মুজিবুর রহমানের সময় থেকেই বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতবর্ষের রিলেশন খুবই ভালো …এবং আমি এখনো মনে করি, আমাদের রিলেশন আরো ভালো হোক, সুন্দর হোক, সার্থক হোক।’

ভিডিও কনফারেন্সেই মোদি ও মমতাকে আবারও বাংলাদেশে আসার আমন্ত্রণ জানান প্রধানমন্ত্রী। আর প্রধানমন্ত্রীকে পশ্চিমবঙ্গ সফরের নিমন্ত্রণ জানান মমতা।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

সশস্ত্র বাহিনীর আধুনিকায়নে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে সরকার

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘সরকার সশস্ত্র বাহিনীর আধুনিকায়নে সর্বাত্মক কার্যক্রমবিস্তারিত পড়ুন

আজ সশস্ত্র বাহিনী দিবস

আজ সশস্ত্র বাহিনী দিবস। ১৯৭১ সালের এ দিনে তিন বাহিনীবিস্তারিত পড়ুন

`প্রান্তিক পর্যায়ে পৌঁছেছে তথ্যপ্রযুক্তি সেবা’

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের সুফল ইতোমধ্যেবিস্তারিত পড়ুন

  • সাগরে নিম্নচাপ, তিন নম্বর সতর্ক সংকেত
  • আজ নানা আয়োজনে বকুলতলা মেতে উঠেছে উৎসবে
  • সিনহার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছেন মহামান্য রাষ্ট্রপতি
  • ইরাক, সিরিয়ায় আইএসের পতনেও ওরা ফেরেনি
  • `বিএনপির অভিযোগ খতিয়ে দেখ‌তে হ‌বে’
  • খালেদাকে গ্রেপ্তার সংক্রান্ত প্রতিবেদন দাখিল ১২ ডিসেম্বর
  • ‘ওয়াহহাব মিঞাই প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব পালন করবেন’
  • প্রধান বিচারপতির পদত্যাগপত্র রাষ্ট্রপতির কাছে পৌঁছায়নি : ওবায়দুল কাদের
  • ছুটি না বাড়ালে আজ থেকে অনুপস্থিত প্রধান বিচারপতি
  • জীবন বাজি রেখে ভেলায় ভেসে আরও শতাধিক রোহিঙ্গার আগমন
  • আজ দ্বিতীয় ভৈরব রেল সেতুর উদ্বোধনে শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদী
  • Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial