রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

আফগান নারী ফুটবলারের ভয়ংকর অভিজ্ঞতা

ইংল্যান্ডে নারী ফুটবলাররা পুরুষ খেলোয়াড়দের সমান পারিশ্রমিক পাওয়ার জন্য লড়াই করছেন। কিন্তু আফগানিস্তানে এ লড়াইটি সম্পূর্ণ ভিন্ন প্রেক্ষাপটে। সেখানে নারীদের জন্য খেলাধুলা করা মোটেই সহজ কাজ নয়। নানাভাবে নারীদের সেখানে নিগৃহীত হতে হয়। আর যখন নারীরা খেলাধূলায় এগিয়ে যান তখন বিষয়টি রীতিমতো বিপজ্জনক হয়ে ওঠে। এমনকি জীবননাশের হুমকিও পেতে হয় অহরহ। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে হাফিংটন পোস্ট।

আফগানিস্তানে বেতনের জন্য নয়, বেঁচে থাকার জন্যই নারী খেলোয়াড়দের যুদ্ধ করতে হয়। আর প্রতিনিয়ত জীবনের হুমকি উপেক্ষা করে বেঁচে থাকার কথা বর্ণনা করেছেন দেশটির নারী ফুটবলার টিমের সাবেক দলনেতা। সম্প্রতি ইউএন ওম্যান সাইটে অন্য নারীদের কাছে সে ভয়ংকর অভিজ্ঞতার কথা বর্ণনা করেন তিনি।

খালিদা পোপ্যাল আফগান নারী ফুটবল দলের প্রথম দলনেতা। তিনি আফগানিস্তানের পরিস্থিতি বর্ণনা করেন অন্যদের কাছে।

খালিদা বলেন, ‘আফগানিস্তানে নারী ফুটবল দলের সদস্যদের যৌনকর্মী বলা হয়।’ তিনি বলেন, ‘আফগানিস্তানে ফুটবলকে শুধু পুরুষদের জন্য খেলা বলেই ধরা হয়।’ তবে খালিদা বলেন, তার মা তাকে ফুটবল খেলা শিখিয়েছেন। তিনি অবশ্য এটি মজা হিসেবেই শিখিয়েছিলেন। কিন্ত এরপর তিনি এ খেলাটির বিরুদ্ধে পুরুষ এবং নারী উভয়ের কাছ থেকেই বাধা পেয়েছিলেন।

তিনি বলেন, ‘ফুটবল খেলার কারণে আমার শিক্ষক আমাকে ক্লাস থেকেও বের করে দিয়েছিলেন। কিন্তু পুরুষ যদি ফুটবল খেলতে পারে তাহলে নারীরা কেন নয়?’

ছোটবেলা থেকে ফুটবল খেলা অনুশীলন করার পর ২০০৭ সালে খালিদা ফুটবল খেলায় আফগানিস্তান জাতীয় দলের অধিনায়ক হন।

তিনি বলেন, ‘আমি ফূটবলকে আমার অধিকার আদায়ের অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নেই। ফুটবলের মাধ্যমে আমি অন্য নারীদের অধিকার আদায়ে তাদের পাশেও দাঁড়াই।’

তবে নারীদের অধিকার আদায়ের এ পথটি মোটেই সহজ নয় আফগানিস্তানে। বহু নারী ও পুরুষই তাদের বিরূপ দৃষ্টিতে দেখে। এমনকি নারীদের প্রায়ই মানুষ হিসেবেই দেখা হয় না। এ কারণে আফগানিস্তানে নারীদের অধিকার আদায়ের পথটি মোটেই সহজ নয়।

তিনি বলেন, ‘আমাদের চারজন নারী এ জন্য একটি টিম গঠন করেছি। মানুষ আমাদের দিকে পাথর ও ময়লা নিক্ষেপ করে। আমি বহুবার জীবননাশের হুমকিও পেয়েছি।’ আফগানদের সবার আগে বুঝতে হবে নারীরাও মানুষ, এরপর নারীর অধিকারের বিষয়টি আসবে, বলেন তিনি।

ক্রমাগত জীবননাশের হুমকির মুখে ২০১১ সালে আফগান নারী ফুটবল টিম থেকে পালিয়ে যান খালিদা। এখন তিনি ডেনমার্কে বসবাস করছেন। সেখান থেকেই সারা বিশ্বের নারীদের খেলায় উৎসাহী করার জন্য তিনি নানাভাবে প্রচারণা চালাচ্ছেন।

https://youtu.be/mcOlbLEQ3i0

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

প্রেসিডেন্ট মাসুদকে সতর্কতা ইরানিদের 

সংস্কারপন্থী মাসুদ পেজেশকিয়ান দ্যই কট্টর রক্ষণশীল প্রতিদ্বন্দ্বী সাঈদ জালিলিকে হারিয়েবিস্তারিত পড়ুন

ভারতের সঙ্গে চুক্তিতে দেশের মানুষের আস্থা প্রয়োজন

বিশিষ্টজনরা বলেছেন, ভারতের সঙ্গে পানি বণ্টন চুক্তিতে দেশের মানুষের আস্থাবিস্তারিত পড়ুন

ভারত আমাদের রাজনৈতিক বন্ধু, চীন উন্নয়নের : কাদের

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ভারত বাংলাদেশের রাজনৈতিকবিস্তারিত পড়ুন

  • ইসরায়েলে মুহুর্মুহু রকেট হামলা ইসলামিক জিহাদের
  • প্রথম বিতর্কের পর ট্রাম্পের দিকে ঝুঁকছেন দোদুল্যমান ভোটাররা!
  • রেবন্ত রেড্ডি এবং চন্দ্রবাবু নাইডু বৈঠক নিয়ে নানা জল্পনা
  • স্টারমারের দুঃখ প্রকাশের পরও বাংলাদেশি কমিউনিটিতে ক্ষোভ
  • রিয়াদে সৌদি আরবের সঙ্গে দ্বিতীয় রাজনৈতিক সংলাপে বসছে বাংলাদেশ
  • তুকতাক করার অভিযোগে গ্রেফতার মালদ্বীপের নারী মন্ত্রী
  • আজ লোকসভার স্পিকার নির্বাচন 
  • প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলন মঙ্গলবার
  • সহমতের ভিত্তিতেই সরকার পরিচালনা করব: মোদী
  • ২৭ জুন আটলান্টায় জো বাইডেন এবং ডোনাল্ড ট্রাম্পের মুখোমুখি বিতর্ক
  • লোকসভায় মোদীর শপথ, সনিয়া গান্ধীসহ বিরোধীদের বিক্ষোভ
  • পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ইতালির পররাষ্ট্র সচিবের সঙ্গে সাক্ষাৎ