সোমবার, এপ্রিল ১৫, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

এই ম্যাচ জয় চাই-ই স্বাগতিকদের

অনেক দিন পর কোনো সিরিজে হার এড়ানোর লড়াইয়ে নামতে হচ্ছে বাংলাদেশকে। সিরিজ বাঁচাতে দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচে জয়ের কোনো বিকল্প নেই প্রথম টি-টোয়েন্টিতে হারা স্বাগতিকদের। মঙ্গলবার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বেলা একটায় মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও দক্ষিণ আফ্রিকা। ওয়ানডে সিরিজে খেলার আগে এই ম্যাচ জয় চাই-ই স্বাগতিকদের।

রোববার প্রথম ওয়ানডেতে ৫২ রানের জয়ে ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতাকেই বড় করে দেখেছে বাংলাদেশ। সমতায় সিরিজ শেষ করতে ব্যাটসম্যানদের বিশেষ করে টপ অর্ডারকে বেশি দায়িত্ব নিতে হবে। তামিম ইকবাল-সৌম্য সরকারের উদ্বোধনী জুটিকে এনে দিতে হবে ভালো সূচনা। অনেক দিন পর কোনো ম্যাচে ব্যর্থ হয়েছে বাংলাদেশের মিডলঅর্ডার। মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাস থিতু হলেও নিজেদের ইনিংস বড় করতে পারেননি। দুই অঙ্কেই পৌঁছাতে পারেননি সাব্বির রহমান ও নাসির হোসেন।

দক্ষিণ আফ্রিকার দুই স্পিনার জেপি দুমিনি ও অ্যারন ফাঙ্গিসো ৮ ওভার বল করে ৩৩ রান দিয়ে তিন উইকেট নেন। অতিথি স্পিনারদের খেলতে বেশ বেগ পেতে হয় স্বাগতিক ব্যাটসম্যানদের। কাইল অ্যাবট, ওয়েইন পার্নেল, কাগিসো রাবাদা, ডেভিড ভিজের পেস বলের সামনেও খুব একটা সাবলীল ছিলেন না বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। টি-টোয়েন্টিতে জিততে অতিথি বোলারদের এবার সামলাতেই হবে স্বাগতিকদের। এতে নেতৃত্ব দিতে পারেন সাকিব, টি-টোয়েন্টি খেলার অভিজ্ঞতা তারই সবচেয়ে বেশি।

টি-টোয়েন্টি এখনও ঠিক বুঝে উঠতে পারেনি বাংলাদেশ। প্রতিনিয়ত হিসাব-নিকেশের মধ্য দিয়ে যাওয়াটা এখনও রপ্ত করতে পারেনি স্বাগতিকরা। সে সব মাথায় না নিয়ে শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ সতীর্থদের উপভোগ করতে বলেছেন মাশরাফি। এই ম্যাচে ভালো করে ওয়ানডের প্রেরণা চান দেশসেরা এই পেসার।

শক্তির বিচারে দক্ষিণ আফ্রিকার চেয়ে অনেক পিছিয়ে বাংলাদেশ, তাই অতিথিদের হারাতে মেলাতে হবে অনেক সমীকরণ। প্রচুর ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটারদের। প্রথম ম্যাচে সেই অভিজ্ঞতাই ছিল অতিথিদের ত্রাতা। কুইন্টন ডি কক, এবি ডি ভিলিয়ার্স, ডেভিড মিলার ভালো না করলেও ঠিকই লড়াইয়ের পুঁজি গড়ে অতিথিরা। ফাফ দু প্লেসি, দুমিনি, রাইলি রুশোর ব্যাটে জয়ের পথে এগিয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা।

সময় নিয়ে ধীরে-ধীরে ম্যাচ জেতানো অপরাজিত ৭৯ রানের ইনিংস খেলেন দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক। পরের ম্যাচে সতীর্থদের কাছ থেকে এমন হিসেবী ব্যাটিং চান বাংলাদেশের অধিনায়ক।

আরাফাত সানি, সাকিব, মুস্তাফিজুর রহমান, মাশরাফি প্রথম ম্যাচে প্রত্যাশিত বোলিংই করেছেন। বোলিং অ্যাকশন সংশোধন করে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরাটা স্মরণীয় করে রাখতে পারেননি সোহাগ গাজী। স্বাগতিকদের বোলিং ইউনিটের জন্য আরেকটি পরীক্ষাই হবে মঙ্গলবারের ম্যাচ। পরিকল্পনা অনুযায়ী খেলতে না পারায় বড় হার এড়াতে পারেনি বাংলাদেশ। এবার পরিকল্পনা বাস্তবায়নের আর যার যার ভূমিকা পালনে প্রত্যয়ী স্বাগতিকরা। প্রত্যেকে নিজেদের কাজটুকু করতে পারলে সমতায় সিরিজ শেষ করার লক্ষ্য পূরণ সম্ভব হবে বাংলাদেশের।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

মুস্তাফিজকে স্বাগত জানাল চেন্নাই সুপার কিংস

আগামী ২২ মার্চ পর্দা উঠছে বিশ্বের জনপ্রিয় ক্রিকেট লিগ ইন্ডিয়ানবিস্তারিত পড়ুন

তানজিদ-রিশাদের তাণ্ডবে সিরিজ জয় বাংলাদেশের

টস জিতে ব্যাট নেওয়া শ্রীলঙ্কা জানিত লিয়ানাগের সেঞ্চুরিতে ভর করবিস্তারিত পড়ুন

দুই নারী আম্পায়ারকে নিয়োগ দিচ্ছে বিসিবি

দেশের ক্রিকেটে নারীদের অগ্রযাত্রা চলছে। নিগার সুলতানা জ্যোতির দল দাপটেরবিস্তারিত পড়ুন

  • মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতার ফাইনালে বাংলাদেশের নীলা
  • সিরিজ বাঁচার লক্ষ্যে
  • ক্রিকেটার ও সংসদ সদস্য সাকিব আল হাসান ফুটওয়্যারের ব্যবসায় নামছেন
  • বিপিএল চ্যাম্পিয়ন তামিমের ফরচুন বরিশাল
  • মোস্তাফিজকে ছেড়ে দিল মুম্বাই
  • গেইল ছাড়াই বাংলাদেশে আসছে উইন্ডিজ
  • পাকিস্তানের জালে বাংলাদেশের মেয়েদের ১৭ গোল
  • পুত্র সন্তানের বাবা হলেন ইমরুলও
  • এ বিজয় আমাদের : প্রধানমন্ত্রী
  • পাকিস্তানকে উড়িয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ
  • সপরিবারে এশিয়া কাপে নান্নু, খালি বাসায় চোরদের হানা
  • যে কদিন মাঠের বাইরে থাকতে হবে তামিমকে