রবিবার, এপ্রিল ১৪, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

কিডনিতে পাথর: রোগের লক্ষণ, কারণ ও চিকিৎসা

নির পাথর মূলত কিডনি বা মূত্রনালীর মধ্যে একটি কঠিন ভর গঠন করে। এরা ক্ষুদ্র অচ্ছ (ক্রিস্টালিন) খনিজ এবং অ্যাসিড সল্টের সাথে তৈরি হয়ে কিডনিতে স্থায়ীভাবে বসবাস করে, শরীরের ইউরিন না প্রস্রাবের সমস্যা সৃষ্টি করে।

এদের টেক্সচার এবং আকারের মাঝে বিভিন্ন ধরণের তারতম্য দেখা যায়। সাধারণত, যে পর্যন্ত শরীরে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি না হয়, সে পর্যন্ত এটি অলক্ষিত থেকে যেতে পারে। যেহেতু, এটি মূত্রাশয়ে সৃষ্টি হয়, তাই পথ পরিষ্কার করার সময় যন্ত্রণাদায়ক ব্যথার সৃষ্টি হতে পারে।

বর্তমানে, অধিকাংশ মানুষেরা এ সমস্যার শিকার হচ্ছে। এই রোগটি প্রাণঘাতী না হলেও, এটা খুব যন্ত্রণাদায়ক হতে পারে। নিম্নে কিডনিতে পাথর হবার লক্ষণ, কারন এবং চিকিৎসা বর্ণনা করা হল-
# কারণসমূহ:
কিডনিতে পাথর হবার কোন নির্দিষ্ট কারন নেই। যখন ইউরিনের সাথে ক্যালসিয়াম, অক্সালেট এবং ইউরিক অ্যাসিডকে পাতলা করে শরীর থেকে বের করা যায় না, তখন ক্রিস্টালের পাতলা আবরন তৈরি হতে থাকে। এরপর আস্তে আস্তে এই পাতলা আবরণের স্ফটিক থেকে কিডনির পাথর তৈরি হয়। কিডনি পাথরের ধরণ সম্পর্কে অবগত হওয়া গেলে এর ভবিষ্যৎ ঝুঁকি নির্ধারণ ও কমাতে সাহায্য পেতে পারেন।কিডনিতে পাথর
# লক্ষণ:
১.
পেটে অথবা কোমরে প্রায় সময় ব্যথা করা।
২.
অণ্ডকোষ ও কুঁচকি এলাকায় ব্যথা ছড়িয়ে পড়া।
৩.
বমি বমি ভাব হওয়া বা বমি করা।
৪.
মূত্রত্যাগ এর সময় জ্বালা করা এবং ব্যথা অনুভূত হওয়া।
# চিকিৎসা:
কিডনি পাথর চিকিত্সা পাথর এবং তার তীব্রতার ধরনের উপর নির্ভর করে। ছোট পাথর যেগুলোর আকার ৫ মিলিমিটার এর সমান হয়, তা প্রস্রাবের মাধ্যমে বের করা যায়। আপনার ডাক্তার আপনাকে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে বলবে, যাতে পানির সাথেই পাথর আপনার শরীর থেকে বের হয়ে যায়। পাথর শরীর থেকে বের হবার পর তা পরীক্ষণের জন্য আপনাকে পাঠাতে হবে।
পাথরের আকার যদি ১০ মিলিমিটার হয়, তবে ডাক্তার আপনাকে কিছু ঔষধ দিবে যাতে পাথরটি ভেঙ্গে প্রস্রাবের মাধ্যমে পাস হয়ে যায়। আরেকটি সাধারণ চিকিৎসা পদ্ধতি হল Extracorporeal শক ওয়েভ লিথোট্রিপসি ( ESWL ). থেরাপির সময় পেটের চামড়ার উপর দিয়ে অভিঘাত তরঙ্গ পাস করা হয়, যার ফলে কিডনির পাথর ভেঙ্গে যায় এবং প্রস্রাবের সময় শরীর থেকে বের হয়ে যায়।
যখন পাথরের আকার অনেক বড় হয়ে যায়, তখন সার্জারির মাধ্যমে পাথর নিষ্কাশন করা হয়। ডাক্তার বিভিন্ন সার্জারির বিষয়ে পরামর্শ দিয়ে থাকেন। এইসব সার্জারীসমূহের মধ্যে Percutaneous nephrolithotomy বা একটি Ureteroscopy অন্তর্ভুক্ত ।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

তরমুজ খেলে কি সত্যিই ওজন কমে?

বাজারে এখন তরমুজে ভরে গেছে। টকটকে লাল রসালো এই ফলবিস্তারিত পড়ুন

পরোক্ষ ধূমপান থে‌কে নারী‌দের সুরক্ষা চায় ‘নারী মৈত্রী’

বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য পাঁচ বিশিষ্ট জয়িতাকে সম্মাননা তুলেবিস্তারিত পড়ুন

বছরে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হচ্ছে ৩০০০ শিশু

বাংলাদেশে প্রতিবছর প্রায় ৩ হাজার শিশু ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হচ্ছে। এসববিস্তারিত পড়ুন

  • আপনি মানসিক রোগী কিনা বুঝবেন কিভাবে?
  • শীত হোক বা গ্রীষ্ম—সারা বছরেই পায়ে দুর্গন্ধ ?
  • রেফ্রিজারেটর খুললেই নাকে হাত, বাজে গন্ধ ?
  • খালি পেটে না খাওয়া ভালো যেসব খাবার
  • ইতিবাচক জীবনের জন্য শ্বাস নেবেন যেভাবে
  • পুরুষের ক্যানসারের যেসব লক্ষণকে অবহেলা করা কারো উচিত নয়
  • করোনারি হৃদরোগের নীরব ৪টি লক্ষণ, জানা দরকার সকলেরই
  • স্তন ক্যানসারের কারণ ও লক্ষণ জানেন?
  • এলার্জির সমস্যা কমাবে আপনি পাবেন একটুখানী স্বস্তি
  • জানা দরকারঃ ক্যান্সারের শীর্ষ অজানা লক্ষণগুলো
  • ২ কোটি ২৫ লাখ শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে
  • ধূমপানের কুফলে শরীরের প্রায় সব অঙ্গই সরাসরি আক্রান্ত হয়, তবে ফুসফুস এবং হৃদযন্ত্রই বেশি আক্রান্ত হয়।