সোমবার, জুন ১৭, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

পরীক্ষায় কাজ দিয়েছে হেডফোন!

পটুয়াখালীতে অনুষ্ঠিত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় অধিকাংশ কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা শিক্ষকরা অনিয়মের অশ্রয় নিয়েছেন। শিক্ষকদের অনেকেই হলে পরীক্ষার্থীদের উত্তর বলে দিয়েছেন। আবার কেউ কেউ বাইরে থেকে মোবাইলে সঠিক উত্তর বলে দিয়েছেন।

তবে প্রশাসন ও পরীক্ষা সংশ্লিষ্টদের দাবি, কোনো ধরনের অনিয়ম হয়নি।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত মোট ১৭টি কেন্দ্রে নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এতে জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে মোট ১৪ হাজার ৬৫৮ জন প্রার্থী অংশ নেন। এর মধ্যে ৪ জনকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

পরীক্ষায় অনিয়ম প্রসঙ্গে ইসহাক মডেল ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে পরীক্ষা দেয়া ইতি আক্তার জানান, তার পেছনের বেঞ্চে যে মেয়েটি পরীক্ষা দিয়েছে তার কানে হেডফোন ছিল। প্রতিটি উত্তর সে মোবাইলের মাধ্যমে কারেকশন করেছে।

ইতি বলেন, ‘ম্যাজিস্ট্রেট হলে এসে যখন জিজ্ঞাসা করল কারও কাছে মোবাইল আছে কি না, তখন অনেকে স্বেচ্ছায় মোবাইল বের করে দেয়। মোবাইল থাকায় অনেকের কাছ থেকে উত্তরপত্র নেয়া হলেও কিছুক্ষণ পরে তা ফিরিয়ে দেয়া হয়।’

এ ছাড়া অনেক পরীক্ষার্থী উত্তরপত্র খালি রেখে এসেছেন। তাদের সাথে ওই কলেজের শিক্ষকদের উত্তরপত্র কারেকশনের ‘কন্ট্রাক’ হয়েছে বলে অভিযোগ করেন ইতি আক্তার।

এদিকে শুক্রবারের নিয়োগ পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে জেলায় আগের দিন বৃহস্পতিবার দিনভর মোবাইল ফোনে ব্যবহৃত হেডফোনের বিক্রি বেড়ে যায় কয়েক গুণ। এদিন সকাল থেকে শহরের মোবাইল এক্সেসরিজের দোকানগুলোতে পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীদের হেডফোন কিনতে দেখা যায়। আর সন্ধ্যার পর বিক্রি বাড়ে কয়েক গুণ।

পটুয়াখালী পোস্ট অফিস রোডের সুগন্ধা ইলেকট্রনিক্স-এর মালিক শহীদ শিকদার জানান, বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই হেডফোনের চাহিদা বেড়ে গেছে। আর সন্ধ্যার পর অনেকে কিনতে এলেও পর্যাপ্ত না থাকায় ফেরত দিতে হয়েছে।’

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর শহরের সদর রোডের এস এ টেলিকমে গিয়ে দেখা যায় হেডফোন ক্রেতাদের ভিড়। উপস্থিত ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, তারযুক্ত হেডফোনের চাইতে ব্লুটুথ হেডফোনের চাহিদা বেশি। আকৃতি ছোট হওয়ায় সহজেই লুকানো যাবে বলে জানান তারা। এ ছাড়া আধুনিক কিছু হেডফোন আছে, ভয়েজে কল রিসিভ করতে ইয়েস এবং কল রিসিভ না করতে চাইলে নো বললেই কল কেটে যাবে। এদিন তারযুক্ত হেডফোন ১০০ থেকে ৪০০ টাকা এবং ব্লুটুথ হেডফোন ৭০০ থেকে ১১০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে।

তবে এ ঘটনা অস্বীকার করে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আতাউর রহমান বলেন, ‘পরীক্ষার হলে কাউকেই মোবাইল বা ডিভাইস নিয়ে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। এ ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে কঠোর নজরদারির ব্যবস্থা ছিল। আর মোবাইল নিয়ে হলে প্রবেশ করায় ৪ জনকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এ ছাড়া শিক্ষকরা যাতে কাউকে উত্তরপত্র বলে না দেন সেজন্য কঠোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল।’বাংলামেইল

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

সাবেক কমিশনার ওয়াহিদা রহমানের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা

দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতের বিচারকবিস্তারিত পড়ুন

কালোবাজারি চক্রের বিরুদ্ধে র‍্যাবের গোয়েন্দার নজরদারি

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার আরাফাত ইসলাম বলেছেন,বিস্তারিত পড়ুন

মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষুধ পাওয়ায় চার ফার্মেসিকে জরিমানা

লক্ষ্মীপুর জেলায় মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষুধ পাওয়ায় ৪টি ফার্মেসিকে ৫২ হাজার টাকাবিস্তারিত পড়ুন

  • ভুয়া ঠিকানায় জন্মসনদ নিয়েছে ১০২ রোহিঙ্গা
  • এমপি আনার হত্যা: শাহীনের দুটি গাড়ি গুলশান থেকে জব্দ
  • এমপি আনারের হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় সত্যের খুব কাছাকাছি এসে গেছি : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
  • এনআইডি জালিয়াতিতে আজিজের ভাইদের তদন্তে ইসি কমিটি
  • নারায়ণগঞ্জে জেএমবির দুই সদস্যের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড
  • মিরপুরে অজ্ঞান পার্টির কবলে কিশোর, খোয়ালো অটোরিকশা
  • নয়াপল্টনে র‍্যাবের অভিযানে অবৈধ ভিওআইপি সরঞ্জামাদিসহ আটক ১
  • কানাডার অন্টারিও প্রভিন্সের ডেনফোর্থে সিলেট অধিবাসী দুই গ্রুপের সংঘর্ষ
  • জামালপুরে ৮ জুয়ারিসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ী আটক
  • অবৈধ কোরবানির হাটে আদায় লাখ-লাখ টাকা! মোল্লার হাট
  • আরতদাড়ের সাথে বিরোধ, রহনপুর বাজারে আম বিক্রি বন্ধ
  • গার্ডরুমে সহকর্মীর গুলিতে পুলিশ সদস্য নিহত