শনিবার, জুলাই ১৩, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

বাংলাদেশের অধিনায়ক বড় আত্মবিশ্বাসী

জিম্বাবুয়ে সিরিজের আগে দায়িত্ব নেয়া মাশরাফি বিন মর্তুজা তাঁর এই এসাইনমেন্টে এই প্রথম দ্বিপাক্ষীয় সিরিজে সমতা আনার জন্য মাঠে নামবে। এর আগের তিন সিরিজেই প্রথম ম্যাচ জিতে বাংলাদেশই এগিয়ে ছিল। বহুদিন পর এমন পিছিয়ে পড়ার স্বাদ পাওয়া বাংলাদেশ দ্বিতীয় ওয়ানডেতে জিতে টি২০ সিরিজ ড্র করার ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী।

প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের বোলিং ভালই হয়েছিল। প্রথম ম্যাচের পারফরম্যান্স দেখে বাংলাদেশ আজ একজন অতিরিক্ত ব্যাটসম্যান নামাতে পারে। ধীরে ধীরে অধিনায়কের বড় ভরসার স্থল হয়ে ওঠা নাসির বাংলাদেশকে এই সুযোগটা দিচ্ছে। সেক্ষেত্রে অভিষেক হতে পারে আজ রনি তালুকদারের। দুই বছর ধরে জাতীয় দলের আশেপাশে ঘোরাঘুরি করছেন রনি তালুকদার। তাঁর পড়ে স্কোয়াডে এসে, সাব্বিব সৌম্যরা দলে জায়গা পাকা করে ফেলেছেন। লিটন দাসের ও দ্বিতীয় সিরিজ এইটা। এতদিন পর সুযোগ পেলেও রনি তালুকদার তাই স্কোয়াডের পরিচিত মুখই। তিনি সুযোগ পেলে টি টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের ৪৭তম খেলোয়াড় হবেন।

প্রথম ম্যাচে স্পিনিং ট্র্যাক বানিয়ে বাংলাদেশ নিজেরাই নিজেদের ফাঁদে পা দিয়েছিল। পিচের ধরণ বুঝে ডু প্লেসিস যেখানে শট কম খেলে সিঙ্গেলস আর ডাবলসের উপর ভর করে ইনিংস নির্মান করেছেন সেখানে শট খেলতে কঠিন এমন উইকেট বানিয়ে শটের মহড়া প্রদর্শন করে একে একে সাজঘরে ফিরেছেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানেরা। আজ দ্বিতীয় ওয়ানডেতে তাই বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের কাছে দর্শকদের দাবি থাকবে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানেরা যেন পরিস্থিতির দাবি মেনে ব্যাটিং করে। সৌম্য সরকার জানিয়েছেন বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক টি২০র পাশাপাশি ঘরোয়া টি২০ ও কম খেলে দেখেই ক্রিকেটের এই সংস্করণে বাংলাদেশের সাফল্য অনেক কম।

আগামী বছর ভারতে বসছে টি২০র বিশ্বকাপের আসর। বাংলাদেশের লক্ষ্য হওয়া উচিৎ সেই আসরকে সামনে রেখে এখনই সেরা দল খুঁজে বের করা। বছরের শেষদিকে বিপিএল এব্যাপারে হয়ত ভাল সাহায্য করবে তারপর ও বিশ্বকাপের কথা এখনই মাথায় রাখা উচিৎ বাংলাদেশের।

ভারত পাকিস্তানের মত উপমহাদেশের না হয়েও বাংলাদেশের কন্ডিশনের সাথে মানিয়ে নিয়ে ঠিকই প্রথম ম্যাচে বড় জয় তুলে নিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। তারা চারজন পেসার নিয়ে খেললেও তাদের দুইজন পেসার যেমন এই মরা পিচেও ঠিকই স্যুইং এবং বাউন্স দিয়ে উইকেট আদায় করে নিচ্ছে তেমন বাকিরাও আইপিএল খেলে কিভাবে উপমহাদেশের পিচে বোলিং করতে হয় সেব্যাপারে সিদ্ধহস্ত। বাংলাদেহের আরেকটা ব্যাপার খেয়াল রাখা উচিৎ যে দক্ষিন আফ্রিকার ফিল্ডিং খুবই ভাল। তারা হাফ চান্স ও মিস করে না। তাই বল শূন্যে উঠলে ক্যাচ হবার সম্ভাবনা অনেক বেশি।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

মুস্তাফিজের প্রশংসায় পঞ্চমুখ ওয়াসিম আকরাম

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে দুর্দান্ত বোলার মুস্তাফিজুর রহমান। কাটার, স্লোয়ারে প্রতিপক্ষের ব্যাটারদেরবিস্তারিত পড়ুন

দিয়াগো কস্তার বীরত্বে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠল পর্তুগাল

অতিরিক্ত সময়ে পেনাল্টি পেয়েও ব্যর্থ হন দলের সেরা তারকা ক্রিস্তিয়ানোবিস্তারিত পড়ুন

শান্তর অধিনায়কত্ব নিয়ে বিসিবি যা ভাবছে

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে সব ফরম্যাটের জন্য বাংলাদেশ দলের নেতৃত্ব পানবিস্তারিত পড়ুন

  • চিলিকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে আর্জেন্টিনা
  • প্রথমবার বিশ্বকাপের ফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকা
  • অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে সেমিতে আফগানিস্তান
  • সেমিফাইনাল নিশ্চিতের মিশনে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টস জিতে ফিল্ডিংয়ে ইংল্যান্ড
  • আবারও বৃষ্টিতে বন্ধ বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ
  • বৃষ্টির পর অস্ট্রেলিয়া শিবিরে রিশাদের জোড়া আঘাত
  • টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ছক্কা হাঁকানোর তালিকায় সেরা দশে হৃদয়
  • টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার এইটএ বাংলাদেশের ম্যাচ
  • আফগানিস্তানকে বিশাল ব্যবধানে হারালো ওয়েষ্ট ইন্ডিজ
  • নেপালকে হারিয়ে সুপার এইটে বাংলাদেশ
  • অস্ট্রেলিয়ার জয়ে ইংল্যান্ড সুপার এইটে
  • বিশ্বকাপে একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে যে রেকর্ড গড়লেন সাকিব