শনিবার, জুলাই ১৩, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

ব্রাজিল থেকে আমদানি নিম্নমানের গম যাচ্ছে টিআর কাবিখায়

ব্রাজিল থেকে আমদানি করা নিম্নমানের গম প্রত্যাখ্যান করেছেন আটা-ময়দা মিলের মালিকরা। খাদ্য বিভাগ এ গম মিলারদের ওপর চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে। মিল মালিকরা খাওয়ার অনুপযোগী এসব গম নিতে রাজি হচ্ছেন না। এ কারণে খুলনায় খোলা বাজারে (ওএমএস) আটা বিক্রি বন্ধ হয়ে গেছে। তবে জিআর, টিআর এবং কাবিখা প্রকল্পে এসব নিম্নমানের গম চালিয়ে দেওয়া হচ্ছে। অপরদিকে, জেলার দশ গুদামে মজুদকৃত গমের নমুনা সংগ্রহ করে তা পরীক্ষাগারে পাঠানো হলেও ফলাফল পাওয়া যায়নি।

খুলনার আঞ্চলিক খাদ্য কর্মকর্তার দফতর সূত্রে জানা গেছে, ২০১৪-২০১৫ অর্থবছরে আন্তর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে ব্রাজিল থেকে ৮০ হাজার মেট্রিক টন গম আমদানি করা হয়। এসবের মধ্যে ৩৫ হাজার মেট্রিক টন বরিশাল ও বৃহত্তর ফরিদপুরে পাঠানো হয়। এ ছাড়া চুয়াডাঙ্গা ও ঝিনাইদহ জেলাতেও এসব গম পাঠানো হয়। খুলনা নগরীর মহেশ্বরপাশা কেন্দ্রীয় খাদ্য গুদামে ১৩ হাজার ১৮৭ মেট্রিক টন, বয়রা কেন্দ্রীয় খাদ্য গুদামে ৮ হাজার ১১৯ মেট্রিক টন, ডুমুরিয়া উপজেলা গুদামে ১০৭ মেট্রিক টন, দাকোপে ২০১ মেট্রিক টন, পাইকগাছায় ১৯৯ মেট্রিক টন, তেরখাদায় ১৩৬ মেট্রিক টন, বটিয়াঘাটায় ৯৮ মেট্রিক টন, ফুলতলায় ২০২ মেট্রিক টন, কয়রায় ১২২ মেট্রিক টন এবং রূপসা উপজেলা খাদ্য গুদামে এক মেট্রিক টন গম মজুদ করা হয়।

ব্রাজিলের নিম্নমানের এসব গম না নেওয়ার কারণ হিসেবে মিল মালিকরা বলছেন, ভালো গমে ৭০ থেকে ৭৫ ভাগ আটা এবং ২৫ থেকে ৩০ ভাগ ভূষি থাকে। কিন্তু ব্রাজিল থেকে আমদানি করা এসব গমে ২৫ থেকে ৩০ ভাগ আটা এবং ৭০ থেকে ৭৫ ভাগ ভূষি। ফলে এসব গম থেকে আটা উৎপাদন করে লোকসানের বোঝা টানতে চান না তারা। এ কারণে খুলনার ২৬টি মিলের মালিক এসব গম প্রত্যাখ্যান করেছেন। ফলে গুদাম খালি করতে খাদ্য কর্মকর্তারা এ গমের সিংহভাগ জিআর, টিআর, কাবিখা ও ভিজিডিসহ বিভিন্ন খাতে বরাদ্দ দিয়েছেন। কিছু পুলিশ ও আনসারদের মধ্যেও বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

গম প্রত্যাখ্যানের কথা স্বীকার করে খুলনা আটা-ময়দা মিল মালিক সমিতির সভাপতি মো. আব্দুল মতিন বলেন, ‘এ গমের মান খুবই খারাপ। খাওয়ার অনুপযোগী। এ গম থেকে আটা করা হলে মিল মালিকরা লোকসানের মুখে পড়বেন। এ কারণে ২৬টি মিলের বিপরীতে ৪০ থেকে ১০০ মেট্রিক টন গম বরাদ্দ থাকলেও কেউ তুলছেন না। খাদ্য কর্মকর্তারা গম নিয়ে সহযোগিতা করার অনুরোধ জানালেও তা সম্ভব হয়নি। এ ছাড়া ব্রাজিলের নিম্নমানের গমের দাম প্রতি কেজি সাড়ে ১৯ টাকা, ভারতীয় ভালো মানের সাদা গমও প্রতি কেজি সাড়ে ১৯ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। তাই একই দামে খারাপ গম কেউ নিতে চায় না।’

আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক কাজী মো. নূরুল ইসলাম জানান, আমদানিকৃত গমের মধ্যে খুলনার দুটি গুদামে ৫৫ হাজার মেট্রিক টন গম মজুদ করা হয়, যা ইতিমধ্যে খুলনা ও বরিশাল বিভাগে বণ্টন করা হয়েছে। বর্তমানে জেটিতে ফ্রান্স থেকে আমদানিকৃত ২০ হাজার মেট্রিক টন গম খালাসের অপেক্ষায় আছে। আমদানিকৃত গমের একটি বড় অংশ টিআর, কাবিখা, ভিজিডিসহ বিভিন্ন খাতে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ফ্রান্স থেকে আনা গম খালাস হলে মিল মালিকদের দেওয়া হবে। জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. সেলিমুল আযম জানান, সোমবার পর্যন্ত খুলনা জেলার বিভিন্ন গুদামে ব্রাজিল থেকে আনা গমের পরিমাণ ছিল ১২ হাজার ৯২৬ মেট্রিক টন। মিল মালিকরা গম না নেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. সেলিমুল আযম। রমজান মাসে আটা বিক্রি কমে গেছে, এ দাবি করে তিনি বলেন, ‘গম নিতে মিল মালিকদের তেমন চাপ দেওয়া হচ্ছে না। অপরদিকে, জেলার ১০টি গুদামে মজুদকৃত গমের নমুনা সংগ্রহ করে তা পরীক্ষাগারে পাঠানো হলেও ফলাফল পাওয়া যায়নি বলে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জানিয়েছেন।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

ছাত্রপক্ষের ঢাবি শাখার আহ্বায়ক জিহাদ, সদস্যসচিব হাসিব

খালিদ সাইফুল্লাহ জিহাদকে আহ্বায়ক এবং জুবায়ের হাসিবকে সদস্যসচিব করে বাংলাদেশবিস্তারিত পড়ুন

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে খুবিতে বিক্ষোভ

সংসদে আইন পাশ করে কোটা সংস্কারের দাবি ও বিভিন্ন ক্যাম্পাসে কোটা আন্দোলনের সময় শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) শিক্ষার্থীরা। শুক্রবার বিকাল ৫টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের হাদী চত্বর থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি বের করা হয়। মিছিলটি আচার্য জগদীশচন্দ্র বসু একাডেমিক ভবন, কেন্দ্রীয় মন্দির, অপরাজিতা ছাত্রী হল, কেন্দ্রীয় গবেষণাগার, কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার, আবাসিক ছাত্র হল, শহিদ তাজ উদ্দিন আহমেদ প্রশাসন ভবনসহ বিভিন্ন ভবনের সামনে দিয়ে পুরো ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের পুলিশ ফাঁড়ির সামনে দিয়ে প্রধান ফটকের সামনে অবস্থান নেয়। তবে শিক্ষার্থীরা সড়কের একপাশে অবরোধ করায় যান চলাচল স্বাভাবিক ছিল। বিক্ষোভে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন। শিক্ষার্থীরা বলেন, বৈষম্যমূলক কোটা ব্যবস্থার বিরুদ্ধে কথা বলায় বিভিন্ন ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের লাঠিচার্জ করে আহত করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের গায়ে কেন হাত দেওয়া হলো প্রশাসনকে এর জবাব দিতে হবে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত পুলিশ দিয়ে হামলা করে ছাত্র সমাজকে দমানো যাবে না।

ভারি বৃষ্টির আভাস ৪ বিভাগে, বাড়তে পারে তাপমাত্রা

দেশের চার বিভাগে ভারি এবং চার বিভাগে হালকা বৃষ্টি হতেবিস্তারিত পড়ুন

  • সরকারের জিম্মি থেকে দেশ ও জনগণ মুক্তি চায়: রাশেদ প্রধান
  • সতর্কবার্তা যাচ্ছে কোটা আন্দোলনে
  • পাকিস্তানের সংসদে পিটিআইকে সংরক্ষিত আসন দিতে আদালতের নির্দেশ
  • তিন দিন পর সারাদেশে গ্যাস সরবরাহ স্বাভাবিক
  • বাংলা ব্লকেডে শিক্ষার্থীরা, ‘কঠোর’ পুলিশ, মাঠে ছাত্রলীগও
  • ছাগলকাণ্ড: মতিউর পরিবারের আরও ১১৬টি ব্যাংক হিসাব, জমি-ফ্ল্যাট জব্দের নির্দেশ
  • খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য দরকার রাজনৈতিক দাওয়াই: মির্জা আব্বাস
  • পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে শাহবাগে শিক্ষার্থীরা, পিছু হটল রায়ট কার
  • কোটা আন্দোলন: মেট্রোরেলের শাহবাগ স্টেশন বন্ধ
  • আসামিসহ প্রিজন ভ্যান আটকে দিলো আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা
  • কোটা আন্দোলন: শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফেরার আহ্বান প্রধান বিচারপতির
  • দশম দিনে গড়াল ঢাবি শিক্ষকদের কর্মবিরতি