বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৮, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

ভালো বন্ধু চেনার উপায়

বন্ধুত্ব স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় কিংবা কর্মক্ষেত্র সব জায়গাতেই কিন্তু সেটা হয়ে যায়। কোনো একটা জায়গায় যাওয়ার পর দেখবেন, কদিন যেতে-না-যেতই আপনার অনেক বন্ধু হয়ে গেছে। তবে সাবধান, সবাইকে নিজের বন্ধু মনে করবেন না। কারণ, সবাই আপনার ভালো বন্ধু নাও হতে পারে। ভুলেও যদি কোনো খারাপ মানুষের সঙ্গে বন্ধুত্ব তৈরি করেন, তাহলে আপনার অনেক বড় ক্ষতি হতে পারে। কারণ, এই বন্ধুটিই সব সময় আপনার আশপাশে থাকবে। তাই বন্ধু বাছাইয়ে সাবধান। কিন্তু ভালো বন্ধু চিনবেন কীভাবে? হ্যাঁ, এরও উপায় আছে। এ ক্ষেত্রে অনমোগাল ওয়েবসাইটের এই তালিকা একবার দেখে নিতে পারেন। পরামর্শগুলো কাজে লাগবে।

১. বন্ধুত্বের বয়স বাড়তে থাকলে একটা সময় আপনি ঠিকই বুঝে যাবেন, মানুষটি স্বার্থপর কি না। আর যা-ই হোক, স্বার্থপর বন্ধুর সঙ্গে সম্পর্ক না রাখাই বুদ্ধিমানের কাজ। কারণ, স্বার্থের কারণে সে আপনার যেকোনো ক্ষতি করতে পারে। তাই যার আচরণ দেখে বুঝবেন যে সে স্বার্থপর না, সেই প্রকৃত বন্ধু।

২. যখন আপনি কোনো ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েন, তখন সবার আগে যে বন্ধুটিকে ফোন করেন, সে-ই আপনার ভালো বন্ধু। কারণ আপনি জানেন, এই বিপদ থেকে সেই আপনাকে উদ্ধার করবে। তাই সে ছাড়া আপনার আর কে ভালো বন্ধু হতে পারে বলুন?

৩. যে বন্ধুটা খুব সহজেই আপনার পরিবারের সঙ্গে মিশে গেছে, সে আসলেই আপনার ভালো বন্ধু। যে আপনাকে আপন মনে করে এবং আপনার পরিবারকেও নিজের পরিবার মনে করে, সে সত্যিকার অর্থেই প্রকৃত বন্ধু।

৪. পারিবারিক ঝামেলা বা বন্ধুমহলের ঝামেলা হোক, সে সব সময়ই আপনার পাশে থাকে। এই বন্ধুটিকে কখনোই দূরে যেতে দেবেন না। কারণ, সব বিপদে-আপদে সেই আপনার একমাত্র ভরসা।

৫. আপনি অসুস্থ হলে বা কোনো সমস্যায় পড়লে যে আপনার পরিবারের অন্য সদস্যদের মতো চিন্তায় থাকে, বুঝবেন সে-ই আপনার ভালো চায়। রক্তের সম্পর্ক ছাড়াই যে বন্ধুটি আপনার কষ্টে কষ্ট পায়, সে নির্দ্বিধায় ভালো মানুষ।

৬. যে বন্ধুটির কাছে আপনি আপনার মনের কোনো কথা লুকিয়ে রাখতে পারেন না, সে তো অবশ্যই আপনার প্রিয় বন্ধু। তবে সাবধান, যে আপনার মনের কথা জেনে অন্যকে বলে বেড়ায় সে আপনার বন্ধু তালিকায় থাকার যোগ্য নয়।

৭. যার সঙ্গে আপনি সব সময় থেকে আনন্দ পান, সে-ই আপনার প্রকৃত বন্ধু। আপনি জানেন, সে আপনার ভুলগুলো খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখবে না। তাই নির্দ্বিধায় আপনি যা ইচ্ছা তা-ই করতে পারেন।

৮. আপনি যাকে চোখ বন্ধ করে বিশ্বাস করতে পারেন, সে-ই আপনার আসল বন্ধু। আর যে বন্ধুটি আপনার বিশ্বাসের মর্যাদা রাখবে না, তার কাছ থেকে দূরে থাকুন। না হলে বিপদে পড়তে পারেন।

৯. আপনার সাফল্যে যে হিংসা করে না, তার মতো ভালো বন্ধু আর খুঁজে পাবেন না। কারণ, বন্ধুরাই সবার আগে হিংসা করে। যে ব্যতিক্রম, সে-ই প্রকৃত ভালো মানুষ।

১০. ভেবে দেখুন তো, আপনি কোন বন্ধুটিকে হারাতে চান না? কারণ, আপনি জানেন তার আপনার জীবনে থাকাটা খুবই জরুরি। এর কারণ হলো, আপনি বুঝতে পেরেছেন যে সে অনেক ভালো বন্ধু এবং যার সঙ্গ আপনার পথচলায় খুবই প্রয়োজন।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

মানবদেহে আদার অনেক উপকার

আমাদের দিনে কয়েকবার রঙিন খাবার খাওয়া উচিত, কিন্তু আপনি কিবিস্তারিত পড়ুন

হোটেল ঘরে বিছানার চাদর সাদা হয় কেন ?

বেড়াতে গিয়ে হোটেলের ঘরে ঢুকে প্রথম যে বিষয়টি নজরে আসে,বিস্তারিত পড়ুন

ধনিয়া পাতার উপকারি গুণ

চিকিৎসকদের মতে, ধনে বা ধনিয়া একটি ভেষজ উদ্ভিদ যার অনেকবিস্তারিত পড়ুন

  • ওজন কমাতে যা খাওয়া যেতে পারে
  • প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় রসুন
  • আমলকি কখনো স্বাস্থ্যের জন্য ‘বিপজ্জনক’ হয়ে ওঠে
  • বাসি দই ও পান্তা ভাতের আশ্চর্যজনক উপকারিতা
  • স্বাদে ও পুষ্টিগুণে ভরপুর সবজি হলো লাউ
  • মৌসুমের সব রেকর্ড ভেঙে তাপমাত্রার পারদ উঠল ৪৩ ডিগ্রিতে
  • যেসব অঞ্চলে টানা ৩ দিন ঝড়বৃষ্টি
  • ২৪ ঘণ্টা না যেতেই ফের কমলো স্বর্ণের দাম
  • গরমে চুলের যত্ন নেবেন কীভাবে?
  • একলাফে সোনার দাম ভ‌রিতে কমলো ৩১৩৮ টাকা
  • কত দিন পর পর টুথব্রাশ বদলাবেন?
  • ত্বকের দাগ দূর করার ঘরোয়া উপায়