সোমবার, জুন ১৭, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

যাত্রীদের দুর্ভোগ, দেশব্যাপী বিক্ষোভ অবরোধ

মহাসড়কে অটোরিকশা চলাচল বন্ধের সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে সোমবারও তৃতীয় দিনের মতো দেশের বিভিন্ন স্থানে অবরোধ, বিক্ষোভ, যানবাহন ভাংচুর, মানববন্ধন ও স্মারকলিপি দিয়েছেন চালক-মালিকরা। নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় পুলিশের সঙ্গে চালকদের সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। ভাংচুর করা হয়েছে কমপক্ষে ২০টি যানবাহন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়ে। গ্রেফতার করা হয় ৪ জনকে।

এ ঘটনায় বেলা ১০টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত কয়েক দফায় ঢাকা-সিলেট ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকে। পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা হয়েছে। অটোরিকশা মালিক-চালকদের আন্দোলনে নিরাপত্তার অভাবে বরিশালের সব রুটে বাস ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়েছে। খুলনায় গাড়ি আটক অব্যাহত রয়েছে। এদিকে অটোরিকশা বন্ধের সরকারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সিলেটের সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান ও শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি এজাজুল হক এজাজ অবস্থান নিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অটোরিকশা মালিক ও চালকরা বলেন, সব সিএনজি স্টেশন মহাসড়ক সংলগ্ন হওয়ায় তারা গ্যাস তুলতে পারছে না। যুগান্তর ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর- ফতুল্লা, সিদ্ধিরগঞ্জ, সোনারগাঁ ও বন্দর (নারায়ণগঞ্জ) : ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডে ফতুল্লার সাইনবোর্ডে বেলা সাড়ে ১১টায় সাইনবোর্ড এলাকায় মিছিল বের করে বিক্ষোভ দেখিয়ে মহাসড়ক অবরোধ করে রাখেন অটোরিকশা চালকরা। ওই সময় পুলিশ বাধা দিলে দুই পক্ষের মধ্যে ব্যাপক ধাওয়াপাল্টা-ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পুলিশকে লক্ষ্য করে অটোচালকরা ইটপাটকেল ছুড়লে পুলিশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়ে ও লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়।

এতে অন্তত ১০ জন আহত হন। তাদের বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তাৎক্ষণিক তাদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। সংঘর্ষের সময় আন্দোলনরতরা ২০টির মতো যানবাহন ভাংচুর করে। এতে করে মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সংঘর্ষের ঘটনায় ৪ জনকে আটক করে পুলিশ। বন্দরের মদনপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে অটোরিকশা মালিক ও চালকরা। সকাল ৯টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত সড়কে অবস্থানের কারণে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে রাস্তার দুই পাশে সৃষ্টি হয় ব্যাপক যানজট।

ঢাকা-চট্টগ্রাম:
মহাসড়কের সোনারগাঁয়ের মোগরাপাড়া চৌরাস্তা, কাঁচপুর, মদনপুর, টিপরদী ও পিরোজপুর এলাকায় বিক্ষোভ ও মহাসড়ক অবরোধ করেছেন অটোরিকশা চালক শ্রমিক-মালিকরা। এ সময় তারা মহাসড়কে গাছের গুঁড়ি ফেলে ও টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দিয়ে বিক্ষোভ করেন। প্রায় ৪ ঘণ্টাব্যাপী অবরোধ ও বিক্ষোভে মহাসড়কের উভয় পাশে প্রায় ৩০ কিলমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়।

দাউদকান্দি (কুমিল্লা) : রোববার বিক্ষোভ সমাবেশ ও গাড়ি ভাংচুরের অভিযোগে অটো মালিক-শ্রমিকদের বিরুদ্ধে সোমবার মামলা হয়েছে। দাউদকান্দি থানার এসআই রঞ্জন কুমার ঘোষ বাদী হয়ে ২৫ জনের নাম উল্লেখ করে আরও অজ্ঞাতনামা ৭০০ জনের বিরুদ্ধে এ মামলা করেন। উজিরপুর ও গৌরনদী (বরিশাল) : নথুল্লাবাদ থেকে অভ্যন্তরীণ ও দূরপাল্লার বাস চলাচল শুরু হয়েছে। সোমবার বেলা ১১টায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাস চলাচলে নিরাপত্তার আশ্বাস দিলে ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে বলে জানান, নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের বাস মালিক সমিতির সভাপতি আফতাব হোসেন। সকাল ১০টা থেকে দেড় ঘণ্টাব্যাপী ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের উজিরপুর ইচলাদী বাসস্টান্ডে অটোরিকশা মালিক ও শ্রমিক সমিতি সড়ক অবরোধ, বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করে।

চট্টগ্রাম : সোমবার সকাল থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে অটোরিকশাসহ নসিমন, করিমন ও ভটভটি চলাচল করতে দেখা গেছে। তবে পুলিশের দাবি, তারা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করছেন। এতে কোনো ধরনের ছাড় দেয়া হবে না।

গাজীপুর : ঢাকা-ময়মনসিংহ ও ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে অটোরিকশা চলাচল করতে তেমন একটা দেখা যায়নি। তবে মহাসড়ক ছাড়া শাখা সড়কগুলোতে অটোরিকশা চলাচল করেছে। ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের চেরাগ আলীতে চালক-মালিকরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাস্তায় নামার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের ধাওয়া দিয়ে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ সময় পুলিশের লাঠিপেটায় ৫ অটোরিকশা চালক আহত হন।

আশুলিয়া (ঢাকা) : বেলা ১০টায় আবদুল্লাহপুর-বাইপাইল সড়কের জিরাবো, ডেণ্ডাবর পল্লীবিদ্যুৎ ও ডিইপিজেড এলাকা থেকে অটোরিকশা মালিক ও শ্রমিকদের বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। বেলা ১২টায় বিক্ষুব্ধ শ্রমিক ও মালিকরা নবীনগর-কালিয়াকৈর মহাসড়কের বাইপাইল এলাকায় অবরোধ করে।

খুলনা : খুলনা-সাতলক্ষীরা মহাসড়ক থেকে পুলিশ সোমবার আরও ১২টি তিন চাকার ইঞ্জনচালিত গাড়ি আটক করেছে। খুলনা-যশোর ও খুলনা-মংলা মহাসড়কেও কঠোর অবস্থানে রয়েছে পুলিশ। গত ৩ দিনে খুলনার ৩টি মহাসড়ক থেকে ৬৮টি গাড়ি আটক করা হয়েছে।

সিলেট : সরকারের সিদ্ধান্ত বিরোধী সমাবেশে গিয়ে রোববার বক্তব্য দেন শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি প্রকৌশলী এজাজুল হক এজাজ। তিনি বলেন, সিলেট জেলায় ৪০ হাজার শ্রমিক রয়েছেন। অটোরিকশা চালুর দাবিতে প্রয়োজনে রক্ত দেয়া হবে। জেলা অটোরিকশা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. জাকারিয়া আহমদ বলেন, সাবেক মেয়র কামরান ও শ্রমিক লীগ নেতা এজাজ আমাদের দাবি ও আন্দোলনের সঙ্গে একাত্ম। আমাদের ঘোষিত ধর্মঘট কর্মসূচি তাদের নির্দেশেই স্থগিত করেছি।

রংপুর : নগরীর কাচারি বাজার এলাকা থেকে অটো চালক উন্নয়ন শ্রমিক কল্যাণ কমিটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি রংপুর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান গেটের সামনে মানববন্ধন ও সমাবেশ করে।

লৌহজং (মুন্সীগঞ্জ) : লৌহজং উপজেলার ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের মাওয়া পয়েন্টে বেলা ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত অটোরিকশা চালকরা অবরোধ করে রাখে। এ সময় মাওয়া-শিমুলিয়া ঘাটে আটকা পড়ে হাজার হাজার যাত্রী।

নাটোর : জেলা অটোরিকশা মালিক সমিতির আহ্বানে মাদ্রাসা মোড় থেকে বিক্ষোভ মিছিল করে শহরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ডে জমায়েত হয়ে মানববন্ধন করে। মানববন্ধন শেষে মালিক ও চালকরা সম্মিলিতভাবে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে জেলা জেলা প্রশাসকের কাছে প্রধানমন্ত্রী বরাবর তাদের নয় দফা দাবি সংবলিত একটি স্মারকলিপি দেয়।

সিরাজগঞ্জ : জেলা অটোরিকশা মালিক ও শ্রমিক ঐক্য পরিষদ স্থানীয় বাজার স্টেশন স্বাধীনতা স্কয়ারে সমাবেশ করে।

স্বরূপকাঠি (পিরোজপুর) : সরকারের মহাসড়কে ক্ষুদ্র যান চলাচল বন্ধ ঘোষণা করাকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট বিরোধের জের ধরে বরিশাল সড়ক পরিবহন সমিতির ডাকা বাস ধর্মঘটের কারণে স্বরূপকাঠির সঙ্গে সোমবার থেকে সারা দেশের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে।

দিনাজপুর : জেলা অটোবাইক শ্রমিক কল্যাণ সোসাইটি সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত অটোরিকশা চলাচল বন্ধ কর্মসূচি পালন করে। এ সময় তারা শহরের বিক্ষোভ মিছিল করে। পরে তারা জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দেয়।

কুষ্টিয়া : বিক্ষোভ মিছিল ও জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছেন জেলার অটোরিকশা মালিক-শ্রমিকরা। তারা বিক্ষোভ করে মানববন্ধনের প্রস্তুতি নিলে পুলিশি বাধার মুখে পড়ে।

নরসিংদী : বিক্ষোভ মিছিল ও জেলা প্রশাসক এবং পুলিশ সুপারের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছে অটোরিকশা মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়ন। শহরের আরশীনগর থেকে তারা একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে।

সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ) : সিরাজদিখানে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে অটোরিকশা মালিক-শ্রমিকরা। এতে মহাসড়কে দীর্ঘ যানজট সৃষ্টি হয়।

শেরপুর (বগুড়া)
: ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের শেরপুরে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছেন অটোরিকশা চালক ও মালিকরা।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

সবুজবাগে পরিবেশমন্ত্রীর সেলাই মেশিন বিতরণ

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী বলেছেন,বিস্তারিত পড়ুন

ঈদযাত্রায় মহাসড়কে  চলছে ধীরগতিতে গাড়ি

গতকাল শুক্রবার ঈদযাত্রায় মহাসড়কে  ধীরগতিতে চলেছে গাড়ি। ঢাকা-উত্তরাঞ্চল মহাসড়কে দিনভরবিস্তারিত পড়ুন

হরিজনদের উচ্ছেদ ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর হামলার প্রতিবাদ

 জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সামাজিক প্রতিরোধ কমিটির উদ্যোগে সাম্প্রতিক সময়ে ‘নারীরবিস্তারিত পড়ুন

  • দুপুরের মধ্যে ৬০ কিমি বেগে ঝড়ের আভাস
  • স্মার্ট কৃষিতে ব্যবহৃত প্রযুক্তিতে কৃষকরা উপকৃত হতে পারবে: কৃষি সচিব
  • খামারবাড়িতে শেষ হলো জাতীয় ফলমেলা ২০২৪
  • মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষুধ পাওয়ায় চার ফার্মেসিকে জরিমানা
  • ইটনায় বজ্রপাতে রাখাল নিহত
  • ময়মনসিংহে ওসি-এসপি’র বার্ষিক কর্ম সম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর
  • নারায়ণগঞ্জে জেএমবির দুই সদস্যের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড
  • ময়মনসিংহে ভূমিসেবা সপ্তাহ উপলক্ষে জনসচেতনামূলক সভা 
  • সরাইলে ভূমিহীন পরিবারের মানববন্ধন
  • জামালপুরে ৮ জুয়ারিসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ী আটক
  • অবৈধ কোরবানির হাটে আদায় লাখ-লাখ টাকা! মোল্লার হাট
  • আরতদাড়ের সাথে বিরোধ, রহনপুর বাজারে আম বিক্রি বন্ধ