রবিবার, এপ্রিল ২১, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি : ৬ লাখ টাকায় খুনের চুক্তি

সিলেটের বিশ্বনাথে যুক্তরাজ্য প্রবাসীর স্ত্রী সুজিনা বেগম হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় গ্রেফতার গয়াছ মিয়া জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে শনিবার। শুক্রবার গয়াছকে বিশ্বনাথ থানা পুলিশ গ্রেফতার করে। সে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার শ্রীরামসী গ্রামের মৃত জহির উল্লার ছেলে।

এ সময় তার কাছ থেকে হত্যায় ব্যবহৃত একটি ছোরাও উদ্ধার করে পুলিশ। গ্রেফতারের পর ঘাতক আয়াজকে নিহত সুজিনার মা রেজিয়া বেগম ও ছোট ভাই জহির উদ্দিনের সামনে আনা হলে তারা তাকে চার ঘাতকের একজন হিসেবে শনাক্ত করেন। পরে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে গয়াছ হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের নাম প্রকাশ করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে রাজি হয়। আদালতে জবানবন্দিতে গয়াছ জানায়, প্রবাসী মুরাদ আহমদের প্রথম স্ত্রী সাবিনা বেগমের নির্দেশে তার সৎভাই ডাকাত সর্দার জুনাব আলী ও একই গ্রামের আওলাদ হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনা করে। ৬ লাখ টাকার চুক্তিতে এই হত্যাকাণ্ড ঘটায় বলে জানায় গয়াছ।

জবানবন্দিতে গয়াছ আরও জানায়, ঘটনার দিন সন্ধ্যায় আত্ময় সেজে মিষ্টি নিয়ে সুজিনার বাড়িতে যাই। বাড়ির ভিতরে আমি, জুনাব আলী, সজলু ও আওলাদ প্রবেশ করি। বাইরে ছিল আরো ৩ জন। সুজিনা আমাদেরকে ড্রয়িং রুমে বসিয়ে রান্না ঘরে যায়। এ সময় জুনাব আলী, সজলু ও আওলাদ রান্না ঘরে গিয়ে সুজিনাকে ছুরি দিয়ে কোপায়। আমি সুজিনার মাকে ছুরি দিয়ে কুপিয়ে পালিয়ে যাই।

এ ব্যাপারে সিলেটের বিশ্বনাথ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল হোসেন বলেন, গয়াছের স্বীকারোক্তিতে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার ভোরে ঘটনার সাথে জড়িত সজলুকে জগন্নাথপুর থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেফতারে পুলিশী অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

জানা যায়, জগন্নাথপুর উপজেলার আব্দুল্লাহপুর গ্রামের সুন্দর আলীর কন্যা যুক্তরাজ্য প্রবাসী সাবিনা বেগমের সাথে প্রায় ১৪ বছর পূর্বে পার্শ্ববর্তী শ্রীরামসি সাতহাল গ্রামের মুরাদ হোসেনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের পরিবারে জন্ম নেয় ৩টি সন্তান। বিয়ের প্রায় ৫ বছর পর থেকে সাবিনা-মুরাদের মধ্যে সৃষ্টি হয় মনোমালিন্য। এক পর্যায়ে পৃথকভাবে বসবাস শুরু করেন সাবিনা ও মুরাদ।

কয়েক বছর ধরে এই বিরোধ আরো জটিল হয়ে উঠে। সাড়ে ৩ মাস পূর্বে দেশে এসে সুজিনাকে বিয়ে করেন মুরাদ। আর এই বিয়েটাকে কিছুতেই মেনে নিতে পারেননি মুরাদের প্রথম স্ত্রী সাবিনা। মুরাদ বিয়ে করে লন্ডন চলে যাবার পর দেশে আসেন সাবিনাও। এ সময় মুরাদ-সুজিনার বিয়ে ভেঙ্গে দিতে মুরাদের পরিবারকে চাপ সৃষ্টি করেন সাবিনা। কিন্ত এই চাপের কাছে কিছুতেই রাজি হননি মুরাদের পরিবার। প্রায় এক মাস দেশে অবস্থান করে লন্ডন চলে যান সাবিনা। সুজিনার মামা আব্দুন নূরের অভিযোগ-পথের কাঁটা দূর করতেই সুজিনাকে হত্যা করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ১৯ জুলাই সন্ধ্যার পর উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের মৃত হাজী আবদুর রউফের বাড়িতে আত্মীয় পরিচয়ে মিষ্টি হাতে নিয়ে আসা চারজন অজ্ঞাতনামা ব্যক্তির ছুরিকাঘাতে নিহত হন যুক্তরাজ্য প্রবাসী মুরাদ আহমদের দ্বিতীয় স্ত্রী সুজিনা বেগম (২১)। এসময় গুরুত্বর আহত হন সুজিনার মা রেজিয়া বেগম ও ছোট ভাই জহির উদ্দিন। এ ঘটনায় প্রবাসীর প্রথম স্ত্রী সাবিনা বেগমসহ ৯ জনকে অভিযুক্ত করে গত মঙ্গলবার নিহত সুজিনার মামা ক্বারী আবদুন নুর বাদি হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

টাকার বিনিময়ে স্ত্রীকে ধর্ষকদের হাতে তুলে দেন স্বামী, অতঃপর…

কুমিল্লায় ৫ হাজার টাকার বিনিময়ে স্ত্রীকে তিন ধর্ষকের হাতে তুলেবিস্তারিত পড়ুন

ইরানের ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞা দিলো যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্য

ইসরায়েলে হামলার প্রতিক্রিয়ায় ইরানের ড্রোন কর্মসূচির ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রবিস্তারিত পড়ুন

টাঙ্গাইলে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

টাঙ্গাইলের নাগরপুরে ছাত্রলীগ নেতা জাহিদ হাসান ঝলককে বাড়ি থেকে ডেকেবিস্তারিত পড়ুন

  • সন্ত্রাসী হামলায় আইনজীবী আহত
  • ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি: জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আল্টিমেটাম
  • শিশুর গলায় পিস্তল ঠেঁকিয়ে স্বর্ণালঙ্কার লুট
  • তালাশ টিমের উপর হামলা, ক্র্যাবের নিন্দা ও প্রতিবাদ
  • ক্যাম্পে নাশকতার পরিকল্পনা, অস্ত্র-গোলাসহ ৪ গ্রেপ্তার
  • সুপ্রিম কোর্টে মারামারি ঘটনায় ৩ সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল বরখাস্ত
  • তথ্য চেয়ে সাংবাদিক জেলে: সুষ্ঠু তদন্তে জোর দিচ্ছেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী
  • নাতনিকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে দাদা আটক নীলফামারীতে
  • সোনারগাঁয়ে ভোটকেন্দ্রে গুলিবিদ্ধ হয়ে যুবক নিহত
  • দ্রুত রাজাকারদের তালিকা প্রকাশ করা হবে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী
  • বিমান থেকে ফেলা ত্রাণ মাথায় পড়ে গাজায় ৫ জনের মৃত্যু
  • চুয়াডাঙ্গার সীমান্তে কোটি টাকার স্বর্ণের বারসহ যুবক আটক