শনিবার, জুলাই ২০, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

হাসনাত করিমই গুলশান হামলার অন্যতম পরিচালক [ভিডিও]

গুলশানে হলি আর্টিসান রেস্তরায় জঙ্গি হামলায় নর্থ সাউথের সাবেক শিক্ষক হাসনাত করিমের সংশ্লিষ্টতার তথ্য পাওয়া গেছে। জানা যায় তার সংকেত পাওয়ার পরেই হামলাকারিরা গুলশানের ঘটনাস্থলে যায়। এর আগে বসুন্ধরা আবাসিকের ই ব্লকের বাড়িতেই জঙ্গিদের সাথে কয়েকদফা বৈঠক করেন হাসনাত করিম। বৈঠকে কমান্ড অভিযানে নিহত পাঁচ জঙ্গি ও আরো কয়েকজন উপস্থিত ছিলেন। হাসনাত করিম নিজে ঘটনাস্থলে উপস্থিত থেকে হামলা পরিচালনা ও মনিটরিং করেন। তিনি ছিলেন গুলশান হামলার অন্যতম পরিচালক। বলা যায়, খলনায়ক। নানাভাবে যোগাযোগ ও তথ্য আদান-প্রদান করেন দেশ ও বিদেশের বিভিন্ন মাধ্যমে। গুরুত্বপূর্ণ এ ভূমিকা পালনের ক্ষেত্রে তিনি ছিলেন একেবারে স্বাভাবিক।

সূত্র জানায়, হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্টে হামলাকারীদের সঙ্গে হাসনাত করিমের জড়িত থাকার বিষয়টি নিয়ে আর কোনো সন্দেহ নেই। রাত ৮টা ৪৬ মিনিটে রেস্টুরেন্টে হামলা হয়। এর ১১ মিনিটের মাথায় ৮টা ৫৭ মিনিটে হাসনাতের মোবাইল ফোনটি সন্দেহ করার মতো বেশ কিছু কাজে সক্রিয় হয়ে ওঠে। হাসনাত করিম হামলার খবরাখবর জানাতে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের ওপর নজর রাখতে শুরু করেন। ধারণা করা হচ্ছে, হামলা শুরুর পর দেশীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিক্রিয়া জানার জন্য তিনি বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের ওপর নজর রাখছিলেন। একইসঙ্গে রেস্টুরেন্টের বাইরে আইনশৃংখলা বাহিনীর তৎপরতা ও বাইরের পরিস্থিতি সম্পর্কে জঙ্গিদের আপডেট রাখছিলেন তিনি।

সূত্র জানায়, তিনি হামলার সময় তার মোবাইল ফোন থেকে উইকারসহ বেশ কয়েকটি অ্যাপসও ডাউনলোড করেন। বিভিন্ন স্থানে বার্তা আদান-প্রদানের কাজে এসব অ্যাপস ব্যবহার করে জঙ্গিরা। এছাড়া হামলায় নিহত বিদেশী নাগরিকদের ক্ষত-বিক্ষত দেহের ছবি পাঠানোর কাজেও হাসনাতের মোবাইল ফোন ব্যবহৃত হয়। উগ্রবাদীদের মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক মুখপত্র ‘আমাক নিউজ এজেন্সি’ ও ইসরাইলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের গুপ্তচর রিটা কার্টৎজের ওয়েব পোর্টাল সাইট ইন্টেলিজেন্সের কাছেও ওইসব ছবি পাঠানো হয়।

যৌথ তদন্ত দলের একজন উচ্চপদস্থ গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, হামলার পরদিন কাকডাকা ভোরে জঙ্গি রোহান ইমতিয়াজ, তাহমিদ খান ও হাসনাত করিমকে রেস্টুরেন্টের ছাদে ঘনিষ্ঠভাবে দাঁড়িয়ে কথা বলতে দেখা যায়। পাশের ভবন থেকে তাদের এই গুরুত্বপূর্ণ সহ-অবস্থানের কয়েকটি ছবি তুলতে সক্ষম হন পার্শ্ববর্তী ভবনের একজন বাসিন্দা।

এতে দেখা যায়, জঙ্গি রোহান ইমতিয়াজের গলায় সামরিক কায়দায় ঝোলানো আছে একটি অত্যাধুনিক অস্ত্র। আর তার পাশে ঘনিষ্ঠ হয়ে দাঁড়িয়ে আছেন তাহমিদ খান ও হাসনাত করিম। ছবিতে তাহমিদের হাতেও অস্ত্র দেখা যায়। তিনজনই ঘনিষ্ঠ ভঙ্গিতে একেবারে স্বাভাবিকভাবে একে অপরের সঙ্গে কথাবার্তা বলছিলেন।

এই ছবি বিশ্লেষণ করে যৌথ তদন্ত দলের একজন দায়িত্বশীল গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, ছবিতে দেখা যাচ্ছে জঙ্গি রোহানের গলায় ভারি অস্ত্র ঝোলানো থাকলেও সে সতর্ক অবস্থানে নেই। দুটো হাতই পেছনে রেখে সে অনেকটাই ‘নরমাল’ (স্বাভাবিক) ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে আছে। অন্যদিকে তাহমিদ খানের হাতে দেখা যায় স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র। পিস্তল আকৃতির সেই অস্ত্রটি তিনি সতর্কভাবে ধরে আছে। অস্ত্র পরিচালনার আগ মুহূর্তে সামরিক কায়দায় যেভাবে প্রস্তুতি নেয়া হয় অস্ত্র হাতে তার শারীরিক ভঙ্গিও তেমন ছিল। তার অস্ত্র ধরার এই ভঙ্গি দেখে বোঝা যাচ্ছে তাহমিদ অস্ত্র চালনায় বিশেষভাবে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। তবে দু’অস্ত্রধারীর সঙ্গে দাঁড়িয়ে গল্প করার সময় হাসনাত করিমকে এতটুকু বিচলিত মনে হয়নি। খোলা চোখে যে কেউ এ ছবির দৃশ্য দেখলে তার কাছেও এমনটি মনে হবে।

ছবির বিভিন্ন দিক বিশ্লেষণ করতে গিয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, ভবনের ছাদে দাঁড়িয়ে থাকার সময় জঙ্গি রোহান ইমতিয়াজ একেবারে অসতর্ক অবস্থায় ছিল। ইচ্ছে করলেই তাহমিদ ও হাসনাত খুব সহজেই তাকে প্রতিহত করতে পারত। কিন্তু তারা সে ধরনের চেষ্টাই করেনি। বরং সশস্ত্র অবস্থায় ছাদে দাঁড়িয়ে মিটিং করে তারা এবং মিটিং শেষে তিনজনই ধীরে ধীরে ছাদ থেকে নেমে যান। এরপর হাসনাত করিম সম্পূর্ণ অক্ষত অবস্থায় সপরিবারে রেস্টুরেন্টের বাইরে বেরিয়ে আসেন।

এতে বোঝা যায়, গুলশান হামলা মিশনের শেষ পর্যায়ে জঙ্গিদের তিনি সমাপনী ব্রিফিং করছিলেন। যারা বাইরে থেকে এ দৃশ্য দেখেছেন তারা হয়তো মনে করেছেন, জঙ্গিরা অবশেষে এই পরিবারকে জিম্মিদশা থেকে জীবিত অবস্থায় ছেড়ে দিয়েছে।

কিন্তু প্রাপ্ত তথ্য প্রমাণ ও ঘটনার ‘এই বিশ্লেষণ’ পুরো বিষয়টিকে ঘুরিয়ে দিয়েছে। ওদিকে তাহমিদও শেষমেশ জিম্মি পরিচয়ের আড়ালে নিজের জীবন রক্ষা করতে সক্ষম হয়। সংশ্লিষ্ট সূত্র সন্দেহের আরও একটি ক্লু হিসেবে প্রতিবেদককে বলেন, প্রাপ্ত ছবিতে রোহান ইমতিয়াজ ও তাহমিদকে একই ধরনের পোশাকে দেখা গেছে। তারা দু’জনেই কালো টি-শার্ট ও খয়েরি রঙের জুতা পরেছিলেন। হলি আর্টিজানের অন্য চার হামলাকারীও একই ধরনের টি-শার্ট ও জুতা পরে হামলায় অংশ নেয়। এটি বর্তমান সময়ে জঙ্গি হামলাকারীদের পরিচয় বহনের বিশেষ একটি সদৃশ্য ক্লু বটে।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, রেস্টুরেন্টের ভেতরে বর্বরতম হত্যাকাণ্ড চালানোর পর ২০টি রক্তাক্ত লাশের মধ্যে দাঁড়িয়ে জঙ্গিরা নির্বিকারভাবে রাতের খাবার সারেন। রেস্টুরেন্টের সহকারী বাবুর্চি মিরাজকে দিয়ে ভাত ও তরকারি রান্না করানো হয়। সহকারী বাবুর্চি মিরাজ তদন্ত দলের কাছে দেয়া তার জবানবন্দিতে চাঞ্চল্যকর এ তথ্য দেন। এ প্রসঙ্গে তিনি তার জবানবন্দিতে বলেন, পাঁচ জঙ্গির সঙ্গে বসে স্ত্রী ও শিশুসন্তানদের নিয়ে তার রান্না করা খাবার খান হাসনাত করিম। এ সময় খাবার টেবিলে তাহমিদ খানও বসেছিলেন।

সূত্র জানায়, হত্যাকাণ্ড চালানোর আগে রেস্টুরেন্টের ভেতরে থাকা বেশকিছু লোককে অস্ত্রের মুখে বিভিন্ন বাথরুমে বন্দি করে রাখা হয়। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে হাসনাত করিম ও তাহমিদ ছিলেন পুরোপুরি মুক্ত। এদের দু’জনকে বাথরুমে আটকে রাখা তো দূরের কথা তারা পুরোপুরি মুক্ত অবস্থায় রেস্টুরেন্টের ভেতর ইচ্ছেমতো ঘুরে বেড়াতে পেরেছে। তাদের সন্দেহ করার ক্ষেত্রে এটিই ছিল সবচেয়ে বড় ক্লু।

জানা যায়, নারকীয় এই হত্যাযজ্ঞের মধ্যে কাকডাকা ভোরে ভবনের ছাদে দাঁড়িয়ে হাসনাত করিমকে ধূমপান করতেও দেখা যায়। অথচ তখন ছিল পবিত্র রমজান মাস। হাসনাত করিম গোয়েন্দাদের জিজ্ঞাসাবাদে নিজেকে ধার্মিক বলে দাবি করলেও সেদিন তিনি রাতের খাবার খেয়েও রোজা রাখেননি। এই তথ্যও তদন্তকারী কর্মকর্তাদের ভাবিয়ে তোলে।

হাসনাত করিমের বাবার নাম মোহাম্মদ রেজাউল করিম। হাসনাত বাংলাদেশ ও ব্রিটেনের দ্বৈত নাগরিক। নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষকতা করার সময় হিযবুত তাহরীরের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এই অভিযোগে ২০১২ সালে তিনি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্বেচ্ছায় অব্যাহতি নেন। অবশ্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে দাবি করেছে, হাসনাত রেজা করিমের বিরুদ্ধে হিযবুত তাহরীরের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ প্রমাণ হয়নি। তিনি ঐ সময় স্বেচ্ছায় চাকরি থেকে অব্যাহতি নেন।

ব্রিটেনের নাগরিক হলেও সম্প্রতি তিনি দেশে ফিরে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিতে আবার যোগদান করেন। গুলশানের হামলার পর নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি তাদের ওয়েবপেজে শিক্ষকদের তালিকা থেকে হাসনাত করিমের নামটি মুছে ফেলে। হাসনাত করিম তার বাবা রেজাউল করিমের বেসিক ইঞ্জিনিয়ারিং নামে প্রতিষ্ঠানে পরিচালক হিসাবে যোগ দেন। গুলশান-২-এর ৫ নম্বর রোডের ৬৮/এ নম্বর বাড়িতে তিনি বাবা-মার সঙ্গে বসবাস করেন। হাসনাতের দাবি, মেয়ে শেফা করিমের জন্মদিন উপলক্ষে তিনি হলি আর্টিজানে সপরিবারে গিয়েছিলেন। তবে গোয়েন্দাদের দাবি, এটি ছিল তার লোক দেখানো একটি পরিকল্পনা। কারণ হলি আর্টিজানের মতো একটি স্প্যানিশ রেস্টুরেন্টে একটি ধর্মপ্রাণ পরিবারের জন্মদিন পালন করাটা ছিল এক ধরনের নাটক।
https://youtu.be/nN9VUhGzaRQ

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

রাজধানীতে আনসার ব্যাটালিয়ন মোতায়েন

ঢাকা মহানগরীতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় ১৬ প্লাটুন আনসার ব্যাটালিয়ন সদস্য মোতায়েনবিস্তারিত পড়ুন

টানা তিন দিন মোবাইল ইন্টারনেটে ধীরগতি

দেশের বিভিন্ন স্থানে টানা তিন দিন ধরে মোবাইল ইন্টারনেট সেবাবিস্তারিত পড়ুন

বিক্ষোভকারীদের অধিকার সমুন্নত রাখতে সরকারের প্রতি আহ্বান যুক্তরাষ্ট্রের

মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলার বলেন, বিক্ষোভকারীদের অধিকার সমুন্নতবিস্তারিত পড়ুন

  • ঢাবি বন্ধের সিদ্ধান্তে শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগে ধন্যবাদ জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ
  • রাজধানীতে কোটা সংস্কার আন্দোলনে সংঘর্ষে সাংবাদিকসহ আহত ২৩
  • জাহাঙ্গীরনগর রণক্ষেত্র, অর্ধশতাধিক আহত 
  • হত্যাকাণ্ডসহ সব অনভিপ্রেত ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে: প্রধানমন্ত্রী
  • বৃহস্পতিবার সারাদেশে কমপ্লিট শাটডাউন ঘোষণা কোটা আন্দোলনকারীদের
  • ছাত্রপক্ষের ঢাবি শাখার আহ্বায়ক জিহাদ, সদস্যসচিব হাসিব
  • আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে খুবিতে বিক্ষোভ
  • ভারি বৃষ্টির আভাস ৪ বিভাগে, বাড়তে পারে তাপমাত্রা
  • সরকারের জিম্মি থেকে দেশ ও জনগণ মুক্তি চায়: রাশেদ প্রধান
  • সতর্কবার্তা যাচ্ছে কোটা আন্দোলনে
  • পাকিস্তানের সংসদে পিটিআইকে সংরক্ষিত আসন দিতে আদালতের নির্দেশ
  • তিন দিন পর সারাদেশে গ্যাস সরবরাহ স্বাভাবিক