বুধবার, এপ্রিল ১৭, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দেয়া হলেও জীবিত ফেরত আসতে পারেনি মুজিবুল!

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার মুজিবুল হককে মালয়েশিয়ায় অপহরণ করে তার পরিবারের কাছে মুক্তিপণ হিসেবে ১০ লাখ টাকা দাবি করা হয়। মুক্তিপণের সাড়ে ৫ লাখ টাকা দেয়া হলেও জীবিত ফেরত আসতে পারেনি মুজিবুল। তাকে দেশে ফিরতে হয়েছে লাশ হয়ে। ওই ঘটনায় মালয়েশিয়া পুলিশ ৬ জনকে গ্রেফতার করলে তাদের জবানবন্দির পর মজিবুল হকের লাশ শনাক্ত করা হয়। আর যারা মুক্তিপণ দাবি করেছিল তারাও নারায়ণগঞ্জ ফতুল্লা এলাকারই বাসিন্দা।

শুক্রবার বিকালে মালয়েশিয়া থেকে অপহৃত ছাত্র মুজিবুল হকের লাশ তার নিজ বাড়ি ফতুল্লার কুতুবপুর সেহাচর এলাকায় নিয়ে আসা হয়। লাশ আনার পর মুজিবুলের পরিবারে চলছে শোকের মাতম। সন্ধ্যার পর জানাজা শেষে সেহাচর তক্কারমাঠ কবরস্থানে মুজিবুল হকের লাশ দাফন করা হয়। নিহত মুজিবুল হক সেহাচর এলাকার আমিনুল হকের ছেলে। অপহরণের পর ফেসবুকে মজিবুলের হাত ও মুখ বাঁধা ছবি ছেড়ে পরিবারের লোকজনদের দেখানো হয়।

জানা গেছে, ২১ জুন ঢাকার এলিফেন্ট রোডের ওয়াকিয়া এডুকেশন নামের একটি এজেন্সির মাধ্যমে স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে মালয়েশিয়া যান মুজিবুল হক। পরে মালয়েশিয়ায় তার বন্ধুদের বাসায় গিয়ে ওঠেন। সেখান থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত বাংলাদেশে যোগাযোগ রাখে মুজিবুল। পরবর্তীতে ৩ জুলাই শুক্রবার রাতে মুজিবুলের মায়ের মোবাইলে একজন ফোন করে জানায়, মুজিবুল তাদের জিম্মায় আছে। মুজিবুলকে জীবিত পেতে চাইলে ৪ জুলাই ১০ লাখ টাকা দিতে হবে।

নতুবা তাকে মেরে ফেলা হবে। পরে শনিবার মুজিবুল হকের ফেসবুকে তার হাত-পা বাঁধা ছবি পোস্ট করে পরিবারের সবাইকে দেখতে বলা হয়। ৬ জুলাই জিম্মিকারীরা ফোন করে মুজিবুলের সঙ্গে তার ভাই জাহিদুল হকের কথা বলায়। তখন মুজিবুল জানায়, টাকা না দিলে অপহরণকারীরা তাকে মেরে ফেলবে। ৭ জুলাই অপহরণকারীদের দেয়া বাংলাদেশ এজেন্ট ঢাকা শ্যামপুর আয়রন ট্রেডিংয়ের মাধ্যমে ৫ লাখ টাকা দেয়া হয়। কিন্তু টাকা দেয়ার পর ছেড়ে দেয়ার কথা থাকলেও পরে আর কোনো যোগাযোগ করেনি অপহরণকারীরা।

নিহত মজিবুল হকের ভাই জাহিদুল হক জানান, যখন যোগাযোগ পাওয়া যাচ্ছিল না। তখন বাংলাদেশের মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করি। এর মধ্যে অপহরণকারীরা ফেসবুকে মজিবুলের হাত ও মুখ বাঁধা ছবি ছেড়ে আমাদের দেখায়। অনেকদিন যোগাযোগের পর আমরা জানতে পারি, ১৬ জুলাই একটি লাশ উদ্ধার করে মালয়েশিয়া পুুলিশ।

পরের দিন ১৭ জুলাই নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়। এরপর শুনতে পাই ফতুল্লার রেলস্টেশন এলাকার মোস্তাকের ছেলে জুয়েল, তক্কারমাঠ এলাকার চয়ন ও মুরাদসহ ৬ জনকে মালয়েশিয়া পুলিশ গ্রেফতার করেছে। তাদের স্বীকারোক্তিতে মুজিবুলের লাশ শনাক্ত করা হয়। ওই লাশ এতদিন মালয়েশিয়া হাসপাতালের হিমাগারে ছিল।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

টাঙ্গাইলে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

টাঙ্গাইলের নাগরপুরে ছাত্রলীগ নেতা জাহিদ হাসান ঝলককে বাড়ি থেকে ডেকেবিস্তারিত পড়ুন

সন্ত্রাসী হামলায় আইনজীবী আহত

নিজস্ব সংবাদদাতা : কোর্টে বিরোধীদলীয় মামলা পরিচালনা করার কারনে সন্ত্রাসীবিস্তারিত পড়ুন

রাজধানীতে হাতিরপুলের আগুন নিয়ন্ত্রণে

রাজধানীর হাতিরপুলে কাঁচাবাজার সংলগ্ন ‘রাজ কমপ্লেক্স’ ভবনের দ্বিতীয় তলায় লাগাবিস্তারিত পড়ুন

  • সোনারগাঁয়ে ভোটকেন্দ্রে গুলিবিদ্ধ হয়ে যুবক নিহত
  • মানিকগঞ্জে হুমকি দিয়ে মন্দিরের মাটি কেটে রাস্তা নির্মাণ
  • ছেলেকে বাঁচাতে গিয়ে প্রাণ গেল মায়েরও
  • হঠাৎ বাস বন্ধ, বিপাকে যাত্রীরা
  • দুর্ভোগে নগরবাসী টানা বৃষ্টি
  • তিন টাকায় ডিমঃ সস্তার ডিম নিয়ে কাড়াকাড়ি
  • নিখোঁজের ১৪ দিন পর বাড়ি ফিরলেন মেয়র
  • দুই ইঞ্জিনিয়ার ছেলে মাকে পিটালেন সম্পত্তির লোভে !
  • আগুনে পুড়ে সন্তান দগ্ধ, মায়ের মৃত্যু !
  • আসন্ন নির্বাচন ঢাকা-১৪: খালেক পরিবারেই থাকছে ধানের শীষ?
  • ভোগান্তির চিরচেনা বৃষ্টির সাগর মিরপুর
  • ঢাকা-১৫ঃ কামাল মজুমদারের সঙ্গে মাঠে আরো পাঁচ প্রার্থী