সোমবার, এপ্রিল ১৫, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

ঈদের ১২ দিন পরও কমছে না বাসভাড়া

ঈদের ১২দিন পরও স্বাভাবিক হয়নি পাবনা-ঢাকা রুটের বাস ভাড়া। এখনো লাগামহীনভাবে যাত্রীদের কাছ থেকে বেশি ভাড়া আদায় করছে বাস মালিকরা। যাত্রীদের অভিযোগ, বাস কাউন্টারগুলোতে টিকেট কিনতে গেলে একেকজনের কাছ থেকে একেক রকম ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। কখনো দ্বিগুণ ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। এতে কর্মস্থলে ফিরতে গিয়ে দুর্ভোগে পড়ছে যাত্রীরা।

এদিকে বাস মালিকপক্ষ বলছে, ঈদের কারণে যাত্রীদের চাপ থাকলেও মালিক সমিতির নির্ধারিত মূল্যই নিচ্ছে তারা। ঈদের আনন্দ স্বজনদের সাথে ভাগাভাগি করতে বেশি ভাড়া দিয়ে ঢাকা থেকে নানা ঝক্কি-ঝামেলা শেষে বাড়িতে ফিরেছিলেন বিভিন্ন পেশাজীবীর মানুষ। ঈদ শেষ, তাই এবার কর্মস্থলে ফেরার পালা।

ঢাকা যাচ্ছে এমন কয়েকজন যাত্রী জানায়, প্রথমদিকে যাত্রীদের প্রচণ্ড চাপ আর অতিরিক্ত ভাড়ার কারণে অনেকে সিদ্ধান্ত নেয় কিছুদিন পরে যাওয়ার। কিন্তু ঈদের ১২ দিন পার হলেও সে পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি। এখনো বাস কাউন্টারগুলোতে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ থাকায় ভাড়াও নেওয়া হচ্ছে বেশি। সাধারণত পাবনা থেকে ঢাকার ভাড়া ৩২০ থেকে ৩৪০ টাকা। কিন্তু ঈদের পর থেকে ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা পর্যন্ত ভাড়া নেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। আবার দ্বিগুণ ভাড়াও নেওয়া হচ্ছে কারো কারো কাছ থেকে। বেশি দামেও টিকেট না পেয়ে অনেক যাত্রী ফিরে যাওয়ার ঘটনাও ঘটেছে। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বাসের ভাড়া ৫০০ টাকার জায়গায় নেওয়া হচ্ছে এক হাজার ১০০ থেকে এক হাজার ৫০০ টাকা পর্যন্ত।

শ্যামলী পরিবহন কাউন্টারের টিকেট মাস্টার মোস্তফা জামান সুইট বলেন, ‘পাবনা থেকে ঢাকার ভাড়া নেওয়া হচ্ছে ৪২০ টাকা। অন্য সময়ে নেওয়া হয় ৩২০ টাকা। এটা মালিক সমিতিরই নির্দেশ। বেশি নেওয়া হয় না। মালিক সমিতির নির্ধারিত চার্ট অনুযায়ী ভাড়া নিচ্ছি আমরা।’

কিংস ট্রাভেলস কাউন্টারের টিকেট মাস্টার ওয়াহেদুজ্জামান রফিক বলেন, ‘দ্বিগুণ ভাড়া নেওয়ার অভিযোগ সত্য নয়। ৬০০ বা ৭০০ টাকা ভাড়া আমরা নিচ্ছি না। আমরা ৪২০ টাকা ভাড়া নিচ্ছি। ঈদের পর ঢাকা থেকে খালি গাড়ি আসে সেজন্য সামান্য কিছু ভাড়া বৃদ্ধি হয়।’

পাবনা জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়ন সভাপতি ফিরোজ খান বলেন, ‘ভাড়া বেশি নেওয়ার অভিযোগ আমাদের কাছে নেই। সরকার নির্ধারিত চার্ট অনুযায়ী নির্ধারিত ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। কোনো মালিক যাতে বেশি ভাড়া না নেয় সে বিষয়েও আমরা সতর্ক আছি।’

এদিকে গর্তে ভর্তি পাবনা কেন্দ্রীয় বাস টারমিনালের পরিবেশও যাত্রীদের জন্য বড় দুর্ভোগ। অসংখ্য গর্তে ভরা টার্মিনাল এলাকায় বৃষ্টিতে হাঁটুপানি জমে যায়। বিশুদ্ধ পানি ও টয়লেটের সুষ্ঠু ব্যবস্থাও নেই।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

কঠিন রোগে ভুগছেন হিনা খান, চাইলেন ভক্তদের সাহায্য

ভারতীয় টেলিভিশন অভিনেত্রীদের মধ্যে হিনা খানের সাজপোশাক নিয়ে চর্চা লেগেইবিস্তারিত পড়ুন

কান্না জড়িত কন্ঠে কুড়িগ্রামে পুলিশের ট্রেইনি কনস্টেবল

আমার বাবা ভিক্ষা করতো, মা রাজমিস্ত্রীর কাজ করতো। সংসারে খুববিস্তারিত পড়ুন

অজানা গল্পঃ গহীন অরণ্যে এক সংগ্রামী নারী

গাজীপুরের শ্রীপুরের মাওনা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের একটি গ্রাম ফুলানিরসিট। সেবিস্তারিত পড়ুন

  • মৌলানা পাস দিয়েছিলেন তারেক মাসুদ
  • আজ শুভ জন্মদিন হুমায়ূন আহমেদ স্যার এর, আয়োজন জুড়ে যা যা থাকছে
  • অভিনেতা ডিপজল দেশে ফিরবেন বৃহস্পতিবার: কি অবস্থায় আছেন তিনি !
  • ড. ইউনূস ফ্রান্সে সম্মাননা নাগরিকত্ব পেলেন
  • সুপারস্টার মেসিকে দেখতে চাকরি বিসর্জন দিলেন এক মেসিভক্ত !
  • দুই হাতে লেখে যে স্কুলের শিক্ষার্থীরা !
  • বাংলাদেশপ্রেমী ফাদার মারিনোর শেষ ইচ্ছা পূরণ হলো না !
  • বন্ধু ফাদার মারিনো রিগন আর নেই !
  • স্মার্টফোন কিনে লাখপতি হলেন পারভেজ
  • ‘সন্তানকে আগুনে ছুড়ে আমাকে ধর্ষণ করে সেনারা’
  • বিয়ের পূর্বে তিনি আগের স্ত্রীদের কাছ থেকে অনুমতি নেনঃ চল্লিশ বছরে ১২০ বিয়ে!
  • কেবল চা-পানি পান করে ৬০টি বছর পার করে দিল