শনিবার, মে ১৮, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

কুমিল্লায় সন্ত্রাসী হামলায় আহত যুবলীগ নেতার মৃত্যু

কুমিল্লার দাউদকান্দিতে সস্ত্রাসী হামলায় আহত যুবলীগ নেতা মোহাম্মদ আলী চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরণ করেছে। আজ শুক্রবার সকালে ঢাকার এ্যাপোলো হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়েছে। গত শনিবার গৌরীপুর বাজারে এক সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় এ নিয়ে দুইজন নিহত হলো। তার মৃত্যুতে এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে। নিহত মোহাম্মদ আলী(৩৫) দাউদকান্দি উপজেলার পেন্নই গ্রামের মৃত ছোবহান মিয়ার ছেলে। যুবলীগ নেতা মোহাম্মদ আলীর স্ত্রী ও দুই বছরের একজন কন্যা সন্তান রয়েছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানাযায়, গত ১ এপ্রিল শনিবার সন্ধ্যায় আবু সাইদ(২৮) ও মোহাম্মদ আলী(৩৫) একটি প্রাইভেটকারযোগে তিতাস উপজেলায় যাওয়ার পথে গৌরীপুর বাজারে জিয়ারকান্দি গোমতী সেতুর নিকটে সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে আহত অবস্থায় তাদেরকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গৌরীপুরে নিয়ে যায়। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে আশংকাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হলে ঐ দিনই আবু সাইদ মারা যায়। পরে মুমূর্ষু অবস্থায় যুবলীগ নেতা মোহাম্মদ আলীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা এ্যাপোলো হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হামলার সাত দিন পর আজ শুক্রবার সকালে ওই হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়।
এ হামলার ঘটনায় নিহত সাঈদের মা আমেনা বেগম বাদী হয়ে ১৫জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৭/৮জনের নামে দাউদকান্দি মডেল থানায় মামলা করলেও এ পর্যন্ত পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেননি। এ হামলার পর কুমিল্লার বিখ্যাত বাণিজ্যিক কেন্দ্র গৌরীপুর বাজারে ক্রেতা শূন্য হয়ে পড়েছে এবং ব্যবসায়ীদের মাঝে হতাশা বিরাজ করছে। ইতিমধ্যে অনেক ব্যবসায়ী তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বিক্রি করে অন্যত্র চলে যেতে চাচ্ছে। এ হত্যা কান্ডের ঘটনায় সাতদি পার হলেও পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করতে না পারায় নিহতের পরিবার, এলাকাবাসী ও বাজারের ব্যবসায়ীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
নিহত মোহাম্মদ আলীর বড় ভাই কুমিল্লা উত্তর জেলা সেচ্চাসেবলীগের যুগ্ন আহবায়ক হাজী তোফাজ্জল হোসেন তার ভাইসহ দুইজনকে যারা প্রকোশ্যে নির্মমভাবে হত্যা করেছে তাদের ইন্দনদাতা গডফাদার এবং খুনীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেছেন।
নিহতের সাঈদের মা আমেনা বেগম তিনি সংসারের উপার্জনক্ষম একমাত্র ছেলেকে হারিয়ে কথা বলার বাকশক্তি হারিয়ে ফেলেছেন। তারপরও তার সাথে আলাপকালে তিনি কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার স্বামী মারা যাওয়ার পর আমার সোনারধন মানিক সাঈদ সংসারের হাল ধরে। তারা বাবা ঈমাম ছিল সেও তার বাবার মত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ত। আমার ছেলেকে ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে মনির চেয়ারম্যান হত্যা মামলায় জড়ানো হয়েছিল।
দাউদকান্দি মডেল থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মিজানুর রহমান জানান, ওই ঘটনায় আরোও একজন নিহত হওয়ার খবর আমি পেয়েছি। লাশের ময়না তদন্ত ভাটারা থানা পুলিশ শেষ করার পর দাউদকান্দিতে পাঠানো হবে। এর সাথে নিহত সাঈদের মা বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা হয়েছে। মামলাটি ডিবি তদারকি করছে। আসামি ধরার জন্য আমরা তাদেরকে সহযোগিতা করছি। নিহত পরিবার যদি মনে করে এর সাথে অন্য কেউ জড়িত আছে তাহলে এর সঙ্গে তাদের নাম যুক্ত হবে।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

চৌদ্দগ্রামে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাস খাদে, নিহত ৫

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে রিলাক্স পরিবহনের একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশেরবিস্তারিত পড়ুন

টাকার বিনিময়ে স্ত্রীকে ধর্ষকদের হাতে তুলে দেন স্বামী, অতঃপর…

কুমিল্লায় ৫ হাজার টাকার বিনিময়ে স্ত্রীকে তিন ধর্ষকের হাতে তুলেবিস্তারিত পড়ুন

কুমিল্লায় ইয়াবাসহ জাসদের কেন্দ্রীয় নেত্রী আটক

কুমিল্লায় ইয়াবাসহ জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের কেন্দ্রীয় নেত্রী এবং কুমিল্লা সিটিবিস্তারিত পড়ুন

  • কুমিল্লায় সড়ক দুর্ঘটনায় মা-ছেলেসহ ৩ জন নিহত
  • পিস্তলটি ১০ হাজার টাকায় ভাড়া নিয়েছিলেন !
  • কুমিল্লায় বাজারে আগুন, তালাবদ্ধ দোকানে শিশুর মৃত্যু
  • কুমিল্লায় চাচিকে নিয়ে ভাতিজা ‘উধাও’ অতঃপর….
  • কুমিল্লায় প্রবাসীর স্ত্রীকে গণধর্ষণ: গ্রেফতার ৪
  • কুসিক মেয়র সাক্কুকে শপথ পড়ালেন প্রধানমন্ত্রী
  • কুমিল্লায় ডিবি পুলিশের অভিযানে ৮ শত বোতল ফেন্সিডিল ৫ শত ইয়াবাসহ ২ জন আটক
  • স্ত্রীর সাথে কলহে মেয়েকে দত্তক, দুই মাস পর ফিরলো মায়ের কোলে
  • কুমিল্লায় বজ্রপাতে কিশোরের মৃত্যু, তিন ছাত্রী অজ্ঞান
  • কুসিকের সদ্য নির্বাচিত মেয়র সাক্কুকে খুঁজে পাচ্ছে না পুলিশ
  • কুমিল্লায় এক যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা
  • কুমিল্লায় বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যুবককে হত্যা