রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

চা কন্যা খায়রুন ইতিহাস গড়লেন  

চা শ্রমিকদের বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়ে সব মহলেই পরিচিত হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে ‘চা কন্যা’ খায়রুন আক্তার। আর এ পরিচিতিকে কাজে লাগিয়ে এবারের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে অংশ নেন খায়রুন। প্রতীক পান ‘কলস’। শুরু থেকেই আলোচনার কেন্দ্রে থাকা খায়রুন শেষ পর্যন্ত বাজিমাত করেছেন। বিপুল ভোটের ব্যবধানে তিনি মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে জয়লাভ করেছেন। ফলে বাগানজুড়ে আনন্দ উৎসব চলছে। 

বুধবার (৫ মে) চুনারুঘাট উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শেষে রাতে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা আয়েশা আক্তার এ ফল ঘোষণা করেছেন। এ সময় কলস প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেয়া খায়রুন আক্তারকে ৭৬ হাজার ২৮১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়। 

চতুর্থ ধাপে নির্বাচনে চা পাতা উত্তোলন করে আপনাদের সেবায় এসেছি বলে প্রচারণা চালানো চা শ্রমিক খায়রুন আক্তার ৭৬ হাজার ভোট পেয়ে চুনারুঘাট উপজেলা পরিষদে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। হতদরিদ্র চা শ্রমিকরা মাথাপিছু ২০ টাকা করে চাঁদা দিয়ে তার এ নির্বাচনের ব্যয় জোগাড় করেন। 

জানা গেছে, এ উপজেলায় ২ লাখ ৪৮ হাজার ৯০৮ ভোটের মধ্যে ১ লাখ ৮ হাজার ৮০৪টি ভোট প্রয়োগ হয়েছে। এরমধ্যে ৫০ হাজারেরও বেশি ভোটার চা শ্রমিক। নির্বাচনে প্রদত্ত ভোটের ৪৮ শতাংশ পেয়ে যেখানে লিয়াকত হাসান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হন সেখানে চা শ্রমিক খায়রুন আক্তার পান ৭০ শতাংশের বেশি ভোট। 

খায়রুন আক্তারের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বী অপর চার প্রার্থীর মধ্যে আবিদা খাতুন ফুটবল প্রতীকে ৮ হাজার ৮৭৩, হাঁস প্রতীকে কাজী সাফিয়া আক্তার ১২ হাজার ২১, পারুল আক্তার পদ্মফুলে ৩ হাজার ১৪৮ ও ইয়াছমিন আক্তার মুক্তা বৈদ্যুতিক পাখা প্রতীকে ৪ হাজার ১৬৮ ভোট পেয়েছেন। চা শ্রমিক খায়রুনের এ বিজয়ে চুনারুঘাট উপজেলায় চা শ্রমিকদের মাঝে আনন্দের বন্যা বইছে। 

জানা গেছে, খায়রুন আক্তার চুনারুঘাটের চা বাগানগুলোতে ‘অগ্নিকন্যা’ নামে পরিচিত। ছোটবড় শ্রমিকরা সবাই তাকে ‘দিদি’ বলে ডাকেন। নির্বাচনের আগে শ্রমিকরা সভা ডেকে ২০ টাকা করে গণচাঁদা তুলে জামানতের টাকা সংগ্রহ করেন। পরে মনোনয়নপত্র দাখিল করা হয়। 

খায়রুন আক্তারের বাবা নেই। চান্দপুর চা বাগানের পাশে মা মল্লিকা বেগমকে নিয়ে তিনি বসবাস করেন। জনগণের টাকা ছাড়াও তিনি একটি এনজিও থেকে ৫০ হাজার টাকা ঋণ নিয়েছেন। 

খায়রুন আক্তার বলেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিতরা বলে থাকেন, তারা সরকারের পক্ষ থেকে কোনো অনুদান পান না। সেই বিষয়টি যাচাই করার জন্য নির্বাচনে এসেছি। কীভাবে কাজ করব এখনো আমি জানি না। তবে সকল ভোটারের অধিকার নিশ্চিত করতে চাই বলেও জানান তিনি।

২০১২ সালে খায়রুনের বাবার ক্যান্সার ধরা পড়লে গরু-ছাগল বিক্রি করে চিকিৎসার পরও তাকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। ফলে মাধ্যমিক পরীক্ষার আগেই তাকে পড়াশোনা ছেড়ে কাজে যোগ দিতে হয়। পাশাপাশি তিনি কথা বলেন শ্রমিকদের অধিকার আদায়ে। 

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

চার্জ গঠন বাতিল চেয়ে রিট করবেন ড. ইউনূস

 শ্রমিক-কর্মচারীদের লভ্যাংশ আত্মসাতের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ড.বিস্তারিত পড়ুন

ড. ইউনূসের মন্তব্য দেশের মানুষের জন্য অপমানজনক : আইনমন্ত্রী

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, কর ফাঁকি দেওয়ার মামলাকে পৃথিবীর বিভিন্নবিস্তারিত পড়ুন

স্বাধীনতার জন্য সিরাজুল আলম খান জীবন যৌবন উৎসর্গ করেছিল

স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্টা, রুপকার, সংগঠক, স্বাধীন বাংলা নিউক্লিয়াস ও জাসদের প্রতিষ্ঠাতাবিস্তারিত পড়ুন

  • ৫৩ বীর মুক্তিযোদ্ধাসহ ১০৬ জনকে সম্মাননা দিল ‘আমরা একাত্তর’
  • হাতিয়ায় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি
  • ৫৭ বছর বয়সে এসএসসি পাস করলেন পুলিশ সদস্য
  • শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ
  • চলে গেলেন হায়দার আকবর খান রনো
  • গফরগাঁওয়ে শ্রেষ্ঠ শ্রেণি শিক্ষক শামছুন নাহার
  • ‘ও আল্লাহ আমার ইকবালরে কই নিয়ে গেলা’
  • ভিক্ষুকে সয়লাভ নোয়াখালীর শহর
  • কঠিন রোগে ভুগছেন হিনা খান, চাইলেন ভক্তদের সাহায্য
  • কান্না জড়িত কন্ঠে কুড়িগ্রামে পুলিশের ট্রেইনি কনস্টেবল
  • অজানা গল্পঃ গহীন অরণ্যে এক সংগ্রামী নারী