শনিবার, মে ১৮, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

১০ বছর পর ঘরহীনদের ছবি তুলতে গিয়ে খুঁজে পেলেন নিজের বাবাকে

রাস্তায় রাস্তায় ঘরহীনদের ছবি তুলতে তুলতে, ১০ বছর ধরে নিখোঁজ বাবার খোঁজ পেলেন ডিয়ানা কিম নামের এক স্ট্রিট ফটোগ্রাফার। হনলুলুর মাউই দ্বীপের বাসিন্দা কিমের এই আবিস্কারে হতচকিত তাঁর পরিবার। হারিয়ে যাওয়া বাবাকে খুঁজে পেয়ে খুশি কিম। বাবার কাছেই ফটোগ্রাফির শিক্ষা। আর সেই ফটোগ্রাফই খুঁজে এনে দিল হারিয়ে যাওয়া বাবাকে।

ছোটবেলায় মা, বাবা ও কিম। এই ছিল তাদের সুখী পরিবার। কিন্তু বাবা মায়ের বিচ্ছেদের পর নিজের আত্মীয় পরিজনদের কাছে থাকতে শুরু করেন কিম। বাবার সঙ্গেও যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। দীর্ঘ প্রায় দশ বছর। হঠাৎ একদিন রাস্তার ধারে এক ব্যক্তিকে দেখে চমকে ওঠেন কিম। নিজের বাবার সঙ্গে মিল খুঁজে পান তিনি। এরপরই তিনি আবিস্কার করেন ওই ব্যক্তিই তাঁর হারিয়ে যাওয়া বাবা।

কীভাবে ঘটল এই ঘটনা? ২০০৩ থেকে হনলুলুর ঘরহীনদের ছবি তোলার কাজ শুরু করেন কিম। ছাদ বলতে মাথার ওপর আকাশ আর বিছানা বলতে রাস্তাই যাদের আস্তানা, সেই ঘরহীনদের ছবি নিয়ে ডকুমেন্ট তৈরি করতে করতে নিজের হারিয়ে যাওয়া বাবার খোঁজ পাবেন বলে কখনই আশা করেননি কিম। রাস্তায় রাস্তায় ঘুরতেন আর ছবি তুলতেন।

হঠাৎ একদিন তাঁর োখে পড়ে একজন রুগ্ন ব্যক্তি রাস্তায় পড়ে আছেন। বহুদিন কিম ওই ব্যক্তির পিছু নিয়েছেন এবং প্রায় প্রতিনিয়ত নজরে রাখতেন। কখনও একা একা ঘুরে বেড়াচ্ছেন, কখনও একটা ছেঁড়া কার্টনের (বাক্স) মধ্যে মাথা গুঁজে শুয়ে আছেন, কখনও রাস্তার ধারে একা একা বসে আছেন। এই সমস্ত নানান মুহূর্ত কিম নিজের লেন্সবন্দি করেন। এরপরই তিনি আবিস্কার করেন ওই ব্যক্তি তাঁর হারিয়ে যাওয়া বাবা। জরাজীর্ণ শরীর, গায়ে ছেঁড়া জামা কাপড়। সিজোফ্রেনিয়া রোগে আক্রান্ত চিকিৎসাহীন বাবাকে দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন কিম।

বাবা ভবঘুরে। কখনও খাবার পান। কখনও পান না। অভুক্ত কাটে দিন। এরপর থেকেই বাবার জন্য খাবার নিয়ে যেতেন তিনি। যখন কিম তাঁর চিকিৎসা করাবেন বলে জানান কোনও ভাবেই রাজি করানো যায়নি তাকে। শেষে ২০১৪ অক্টোবরে হৃদরোগে আক্রান্ত হবার পর নিজের চিকিৎসায় রাজি হন। এরপর দীর্ঘদিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় থাকার পর সুস্থ হয়েছেন তিনি। কিম জানিয়েছেন, তিনি তাঁর বাবাকে নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়াতে নিজের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যাবেন। তিনি আরও বলেন, ‘জীবন একটা উপহার। আমার খুব ভাল লাগছে এটা দেখে, বাবা এখন সুস্থ আছেন।

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

৫৭ বছর বয়সে এসএসসি পাস করলেন পুলিশ সদস্য

বগুড়ায় ৫৭ বছর বয়সে এসএসসি পাস করেছেন বগুড়া ট্রাফিক পুলিশেরবিস্তারিত পড়ুন

শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৪৪তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তনবিস্তারিত পড়ুন

চলে গেলেন হায়দার আকবর খান রনো

প্রবীণ রাজনীতিক ও লেখক বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) উপদেষ্টা হায়দারবিস্তারিত পড়ুন

  • গফরগাঁওয়ে শ্রেষ্ঠ শ্রেণি শিক্ষক শামছুন নাহার
  • ‘ও আল্লাহ আমার ইকবালরে কই নিয়ে গেলা’
  • ভিক্ষুকে সয়লাভ নোয়াখালীর শহর
  • কঠিন রোগে ভুগছেন হিনা খান, চাইলেন ভক্তদের সাহায্য
  • কান্না জড়িত কন্ঠে কুড়িগ্রামে পুলিশের ট্রেইনি কনস্টেবল
  • অজানা গল্পঃ গহীন অরণ্যে এক সংগ্রামী নারী
  • মৌলানা পাস দিয়েছিলেন তারেক মাসুদ
  • আজ শুভ জন্মদিন হুমায়ূন আহমেদ স্যার এর, আয়োজন জুড়ে যা যা থাকছে
  • অভিনেতা ডিপজল দেশে ফিরবেন বৃহস্পতিবার: কি অবস্থায় আছেন তিনি !
  • ড. ইউনূস ফ্রান্সে সম্মাননা নাগরিকত্ব পেলেন
  • সুপারস্টার মেসিকে দেখতে চাকরি বিসর্জন দিলেন এক মেসিভক্ত !
  • দুই হাতে লেখে যে স্কুলের শিক্ষার্থীরা !