মঙ্গলবার, জুন ২৫, ২০২৪

আমাদের কণ্ঠস্বর

প্রধান ম্যেনু

তারুণ্যের সংবাদ মাধ্যম

কেউ ছাত্র সংসদ নির্বাচন চায় না : লাকী

লাকমিনা জেসমিন সোমা: দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ তথা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়-গুলোতে ছাত্র সংসদ নির্বাচন না হওয়াকেই আজকের ছাত্র রাজনীতির বড় সংকট বলে মনে করছেন ছাত্র ইউনিয়নের নতুন সভাপতি লাকী আক্তার। তিনি বলেন, ছাত্রদের ঘিরেই বিশ্ববিদ্যালয়গুলো প্রতিষ্ঠিত এবং পরিচালিত। অথচ, এ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোয় ছাত্র সংসদ নির্বাচন ছাড়া আর সব ধরনের নির্বাচনই অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তার মতে, ছাত্র সংসদ নির্বাচন হলে সামগ্রিক ছাত্র রাজনীতিতে গণতান্ত্রিক অবস্থা বজায় থাকত, যা জাতীয় রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারত।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংগঠনগুলা দীর্ঘদিন ধরে ছাত্র সংসদ নির্বাচনের দাবি জানিয়ে এলেও কেন হচ্ছে না- এমন প্রশ্নে লাকী আক্তার বলেন, প্রশাসনের উদাসীনতাই এর পেছনে অন্যতম কারণ। তারা চায় না, ছাত্ররা নিয়মতান্ত্রিকভাবে তাদের অধিকার নিয়ে কথা বলুক। জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার বদলে বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বৈরতান্ত্রিকভাবে নিজেদের সব নীতি চাপিয়ে দেওয়ার সুবিধার্থেই সরকার কিংবা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কেউ ছাত্র সংসদ নির্বাচন চায় না। অতীতে ছাত্র ইউনিয়নসহ বাম ছাত্র সংগঠনগুলো ছাত্রদের অধিকার আদায়ে তথা ছাত্র রাজনীতিতে গুরুতপূর্ণ ভূমিকা পালন করলেও বর্তমানে তাদের সে ভূমিকা দেখা যায় না- এ বিষয়ে জানতে চাইলে লাকী বলেন, সামগ্রিকভাবে জাতীয় রাজনীতির নিয়ন্ত্রণ বহুলাংশে লুটেরা শ্রেণির হাতে চলে যাওয়ায় রাজনৈতিক দলগুলোর লেজুড়বৃত্তি ছাত্র সংগঠনগুলোর চরিত্রেও প্রতিফলিত হচ্ছে।

তবে ¯্রােতের বিপরীতে দাঁড়িয়েও ছাত্র ইউনিয়ন কখনই তার আদর্শ থেকে সরে যায়নি বলে দাবি করেন লাকী। তিনি বলেন, বরাবরের মতো আমরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোয় ছাত্রদের অধিকার আদায়সহ জাতীয় স্বার্থের বিভিন্ন ইস্যুতে আন্দোলন-সংগ্রাম করছি। সাম্প্রতিক বছরগুলোয়ও গণজাগরণ মঞ্চ, স্কুল রক্ষার আন্দোলন, যৌনসন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আন্দোলন কিংবা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভ্যাটবিরোধী আন্দোলনসহ বিভিন্ন জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ আন্দোলনে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছে ছাত্র ইউনিয়ন। বর্তমানে তার সংগঠন থেকে অনেকেই নিজেদের রাজনৈতিক আদর্শ ও স্বকীয়তা বজায় রেখে জাতীয় পর্যায়ে উঠে আসছেন বলে মন্তব্য করেন তিনি। সরকারি দলের ছাত্র সংগঠন তথা ছাত্রলীগের রাজনীতি প্রসঙ্গে ছাত্র ইউনিয়নের নতুন সভাপতি লাকী আক্তার বলেন, নতুন এবং তরুণদের নেতৃত্বে রেখে ছাত্রলীগের যে নতুন কমিটি গঠন করা হয়েছে তা আশাব্যঞ্জক। তবে দু-একটি ইতিবাচক কর্মসূচির পরও সামগ্রিকভাবে ছাত্রলীগ তাদের ভাগ-বাটোয়ারা, টেন্ডারবাজি কিংবা আধিপত্য বিস্তারের রাজনীতি থেকে সরে আসতে পারেনি। সম্প্রতি মেডিকেলের প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ প্রসঙ্গে লাকী আক্তার বলেন, বাংলাদেশে প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা নতুন কিছু নয়। সম্প্রতি মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজে ভর্তিপরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগের পেছনে যথেষ্ট প্রমাণ রয়ছে বলে মনে করেন তিনি।

লাকী বলেন, প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) কর্মকর্তাসহ বেশ কয়েকজন গ্রেফতার হওয়ার ঘটনা দৃঢ়ভাবেই প্রমাণ করে যে প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে। অথচ পুনরায় পরীক্ষা নেওয়ার ব্যাপারে যারা আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করছেন তাদের অনেককেই ভয়ভীতি প্রদর্শন ও বিভিন্নভাবে নাজেহাল করার মাধ্যমে আন্দোলন ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে সরকার। তবে আন্দোলনের ফলাফল যায়ই আসুক শিক্ষার্থীরা তাদের অধিকার আদায়ে যে সোচ্চার হয়েছে তাকেই ইতিবাচকভাবে দেখছেন এই নেত্রী। দেশের সামগ্রিক শিক্ষাব্যবস্থা এখন ভয়ঙ্কর দিকে ধাবিত হচ্ছে বলে মনে করছেন ছাত্র ইউনিয়নের বর্তমান কর্ণধার। তিনি বলেন, সর্বস্তরে শিক্ষার বাণিজ্যিকীকরণ করা হচ্ছে। বাণিজ্যিকীকরণের এসব তৎপরতা প্রতিহত করতে না পারলে সামনে আরও ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি আমাদের জন্য অপেক্ষা করছে। আর সে কারণেই এ মুহূর্তে দরকার ছাত্র-শিক্ষকসহ সর্বস্তরের মানুষের অংশগ্রহণে ’৬২-এর মতো আরও একটি ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন। যে কাক্সিক্ষত শিক্ষাব্যবস্থার জন্য মুক্তিযুদ্ধ করা হয়েছিল, সে শিক্ষাব্যবস্থার জন্য আবারও একযোগে সোচ্চার হতে হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। আর এটি করতে অতীতের মতো সর্বপ্রথম ছাত্রদেরই এগিয়ে আসতে হবে।

সম্প্রতি ছাত্র ইউনিয়নের ৩৭তম সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন সভাপতি নির্বাচিত হয়ে সংগঠনকে আরও এগিয়ে নিতে কী করছেন- এমন প্রশ্নে লাকী বলেন, দেশব্যাপী ছাত্রদের মধ্যে একটি জাগরণ সৃষ্টির চেষ্টা করছি। অতীত সাফল্যের ধারাবাহিকতা বজায় রেখে সংগঠনকে আরও কার্যকর ও সক্রিয় করে গড়ে তুলতে বৃহত্তম পরিকল্পনা হাতে নিচ্ছি। তৃণমূলের স্কুল থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ পর্যন্ত ছাত্রদের তাদের অধিকার সম্পর্কে সচেতন করার লক্ষ্যে কাজ করব। সর্বোপরি শিক্ষার সামগ্রিক সংকট নিরসনে বড় ধরনের ছাত্র আন্দোলনের মাধ্যমে শিক্ষাব্যবস্থায় কাক্সিক্ষত এবং একটি ইতিবাচক বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনার লক্ষ্যে ছাত্র ইউনিয়নকে অগ্রণী ভূমিকায় দেখা যাবে বলে প্রত্যয় ব্যক্ত করেন লাকী আক্তার।- বাংলাদেশ প্রতিদিন

এই সংক্রান্ত আরো সংবাদ

খেলার জগতের সামাজিক দায়বদ্ধতা ও পেশাদারি কাঠামো

লাল-সবুজের তরুণ প্রজন্মের এ সময়ের প্রিয় শ্লোগান, ‘বাংলাদেশের জান, সাকিববিস্তারিত পড়ুন

আগস্টের শোককে শক্তি হিসেবে নিতে পারি আমরা তরুণেরা

“যতদিন রবে পদ্মা যমুনা গৌরী মেঘনা বহমান, ততদিন রবে কীর্তিবিস্তারিত পড়ুন

বাবা যখন ধর্ষক

যেখানে আপন বাবাই ধর্ষণ করে, সেখানে সৎ বাবার ধর্ষণ আমাদেরবিস্তারিত পড়ুন

  • দুই বড় দেশ যখন প্রতিবেশী ও প্রতিযোগী
  • মৌসুমি নৌকা শোরুম
  • ভারতবিদ্বেষ কেন বেড়ে চলেছে?
  • জনগণের কাছে শেখ হাসিনাই জয়ী
  • ‘গুলিস্তান’ নেই, তবু আছে ৬৪ বছর ধরে
  • পদ্মা ব্রিজ দিয়ে কী হবে?
  • যুদ্ধাহতের ভাষ্য: ৭০– “এখন অমুক্তিযোদ্ধারাই শনাক্ত করছে মুক্তিযোদ্ধাদের”
  • আসুন, বড় হই
  • আসুন, পিঠের চামড়া না তুলে পিঠ চাপড়ে দিতে শিখি
  • বাড়িওয়ালা মওদুদ ও বাড়িছাড়া মওদুদ
  • ব্রিটেনের নতুন সরকার নিয়ে যে শঙ্কা!
  • আওয়ামী লীগ ছাড়া কি আসলে কোনো বিকল্প আছে?